অন্তরঙ্গ অবস্থায় দেখার কারণে বিয়ের নিদান শালিশিতে, প্রেমিকের মৃত্যু

ফোর্থ পিলার

আমবাগানে কিশোরী প্রেমিকার সঙ্গে কিছুটা অন্তরঙ্গ অবস্থায় ছিল প্রেমিক। গ্রামের লোকজন দেখে ফেলে সেই দৃশ্য। প্রেমিক প্রেমিকার অন্তরঙ্গ হওয়ার বিষয়টি উঠে আসে আলোচনায়। তাদের ধরে বিয়ের নিদান দেওয়া হয়। গ্রামেরই এক মন্দিরে তাদের বিয়ে দেওয়া হয় সালিশি সভার সিদ্ধান্ত অনুসারে। এই পরিস্থিতিতে ফল হয় ভয়ঙ্কর।

তরুণের পরিবারের সদস্যরা এই বিয়ে মানতে রাজি হয়নি ।প্রবল মানসিক চাপ তৈরি হয়েছিল ওই তরুণের। বছর কুড়ির ওই প্রেমিকের গলায় ফাঁস লাগানো ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধার হল সোমবার বেলার দিকে। মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটেছে মালদহ জেলার মানিকচক গ্রাম পঞ্চায়েতের মনকুট বাঁধ এলাকায়। পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। কারোর বিরুদ্ধে এই খবর লেখা পর্যন্ত অভিযোগ দায়ের হয়নি। মৃত ওই তরুণের নাম মানিক মণ্ডল (২০)। জানা গিয়েছে, এলাকার এক কিশোরীর সঙ্গে তার সম্পর্ক ছিল।

ওই কিশোরী এবার মাধ্যমিক পরীক্ষার্থী। তারা বড়দের চোখ এড়িয়ে দুজনে মেলামেশা করত। সম্পর্ক অনেকটাই এগিয়ে গিয়েছিল। এ কথা মনে করা হচ্ছে। গতকাল রবিবার তাদের এলাকার এক আমবাগানে দেখতে পাওয়া যায়। বাসিন্দাদের বক্তব্য প্রেমিক-প্রেমিকাকে অন্তরঙ্গ অবস্থায় দেখা গিয়েছিল। এরপর তাদের ধরা হয়। সালিশি সভা বসানো হয়েছিল গ্রামের মুরুব্বিদের কথায়। ওই সালিশি সভায় জানানো হয় অন্তরঙ্গ হওয়ার কারণে তাদের বিয়ে করতে হবে। প্রেমিক-প্রেমিকা কিছুতেই এতে প্রথমে রাজি হয়নি। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তারা অস্বীকার করতে পারেনি নিদানকে।

এই অবস্থায় স্থানীয় একটি মন্দিরে তাদের জোর করে বিয়ে দেওয়া হয়। মানিকের মা এই বিয়ে মানতে নারাজ। তার সঙ্গে রীতিমতো বিবাদ বাধে গ্রামের অন্যান্যদের। শুধু তাই নয়, মানিকের সঙ্গে বচসা হয় মায়ের। কিন্তু গ্রামের অন্যান্যরা মানিকের মায়ের কথা শুনতে রাজি হয়নি। এভাবে রবিবার রাত কাটে। সোমবার সকাল থেকে মা ছেলের মধ্যে বিবাদ ফের দেখতে পাওয়া যায়। এই পরিস্থিতিতে কিছু সময় পরে মানিকের গলায় ফাঁস লাগানো ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধার হয়। মানসিক চাপ থেকে মানিক আত্মহত্যা করেছে। একথা প্রাথমিকভাবে মনে করা হচ্ছে।

পুলিশ মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের পাঠিয়েছে। কারোর বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ হয়নি এই খবর লেখা পর্যন্ত। পুলিশ প্রাথমিক তদন্ত শুরু করেছে। কি করে এভাবে বিয়ে দেওয়া হল? তাই নিয়ে উঠেছে প্রশ্ন। গ্রামের মুরুব্বিদের খোঁজ করা হচ্ছে। মধ্যযুগীয় সমাজের উদাহরণ ফের দেখা গেল মানিকচকের এই ঘটনায়।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।