অসুস্থ হচ্ছেন ভলেন্টিয়াররা, ভ্যাক্সিন ট্রায়াল বন্ধ অক্সফোর্ডের

ফোর্থ পিলার

অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিনের ট্রায়াল চলছিল। তার মধ্যেই এল দুঃসংবাদ। একাধিক ভলেন্টিয়ার অসুস্থ হয়ে পড়েছেন ভ্যাকসিনের ট্রায়ালে টিকা গ্রহণ করে। শেষপর্যন্ত এই মুহূর্তে ব্রিটেনের ফার্ম অ্যাস্ট্রাজেনেকা এই ট্রায়াল বন্ধ রাখল। পরিস্থিতি খতিয়ে দেখেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। কেন অসুস্থ হয়ে যাচ্ছেন ভলেন্টিয়াররা? বিষয়টি আগে নজরে রাখা হবে। ফের ট্রায়াল’ শুরু হওয়ার ভাবনা তারপরে।

অক্সফোর্ড করোনা ভাইরাসের টিকা আবিষ্কার করেছে। এই বক্তব্য প্রথম উঠে এসেছিল। গোটা বিশ্বেই কার্যত এক আশার বাণী ছড়িয়ে পড়ে। একের পর এক ট্রায়াল’ শুরু হয়। ভারতেও সিরাম কোম্পানি অক্সফোর্ডের সঙ্গে যৌথভাবে উদ্যোগী হয়েছে এই কাজে। পৃথিবীর অন্যান্য দেশে একাধিক ফার্মা কম্পানি তাদের সঙ্গে জোট বেঁধেছে। ব্রিটেনের ফার্মা কম্পানি ফার্ম অ্যাস্ট্রাজেনেকা এই কাজ করছিল। দেখা যায় টিকা নেওয়ার পর অসুস্থ হতে শুরু করেছেন ভলেন্টিয়াররা। সেখান থেকেই আপাতত এই ভ্যাকসিনের ট্রায়াল’ বন্ধ রাখা হচ্ছে।

দীর্ঘদিন ধরে এইরকম ট্রায়াল’ চললে অসুস্থ হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। এই ঘটনা নতুন কিছু নয়। তবে অসুস্থতার গভীরতা কতটা? সেই সম্পর্কে তথ্য পাওয়া যায়নি। কতজন অসুস্থ হয়েছেন? তাও জানা যাচ্ছে না। এই সংবাদ আসার পরে বেশ কিছু প্রশ্ন তৈরি হয়েছে। সাধারণত, বেশ কিছু ক্ষেত্রে ঠান্ডা লাগার সমস্যা তৈরি হতে পারে। জ্বর আসতে পারে। এই ক্ষেত্রে ঠিক কি কি ঘটনা ঘটেছে? তা জানানো হয়নি।

অ্যাস্ট্রাজেনেকার মুখপাত্র বলেছেন, “এই মুহূর্তে বিশ্বজুড়ে অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিনের ট্রায়াল চলছে। কিন্তু সুরক্ষা নিয়ে কিছু প্রশ্ন উঠেছে। নিজেদের ট্রায়াল আপাতত বন্ধ রাখছি। একটি নিরপেক্ষ দল এই ভ্যাকসিন কতটা সুরক্ষিত, তা পরীক্ষা করে দেখবে। তারপর ট্রায়াল শুরু হবে।” ভ্যাকসিনে ট্রায়ালের ক্ষেত্রে এই ধরনের ঘটনা ঘটলে, পরীক্ষা বন্ধ রাখা হয়। বিশেষজ্ঞরা সম্পূর্ণ ঘটনা খতিয়ে দেখেন। সবুজ সংকেত পেলে ফের চালু হয়। এইক্ষেত্রেও একই ঘটনা ঘটবে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।