আগামী তিন দিন ভারী বৃষ্টি রাজ্যে, বাড়বে জল যন্ত্রণা

ফোর্থ পিলার

কলকাতা জলমগ্ন হয়ে রয়েছে। গতকাল রাত থেকে টানা বৃষ্টি। কলকাতা ও দক্ষিণবঙ্গে উত্তর থেকে দক্ষিণ জল জমার ছবি আরও দীর্ঘায়িত হচ্ছে। আকাশ মুখ ভার করে থমথমে। আলিপুর আবহাওয়া দফতর আরও দুশ্চিন্তার বার্তা শুনিয়েছে। আবহাওয়ার উন্নতি হওয়ার কোনও অবকাশ নেই। বরং টানা তিন দিন ভারী বৃষ্টি হবে রাজ্যজুড়ে। কার্যত এক অশনী সংকেত দেখা দিয়েছে। চিন্তা বেড়েছে নবান্নতে।

প্রত্যেকটি নদীতেই জল বাড়ছে। পশ্চিমের জেলাগুলি বিপর্যস্ত। নদীর জল টইটুম্বুর হয়ে এলাকা ভাসাতে শুরু করেছে। মাইথন ও পাঞ্চেত ব্যারেজ জল ছেড়েছে প্রথম দফায়। আরও জল ছাড়ার আশঙ্কা রয়েছে। হুগলি ও গঙ্গা নদীতে জলস্তর বাড়ছে ক্রমে। টানা তিন দিন এভাবে মাত্রারিক্ত বৃষ্টি হলে পরিস্থিতি বিপর্যয় মধ্যে ফেলে দেবে। তা বলার অপেক্ষা রাখে না। আলিপুর আওয়া দফতর জানাচ্ছে, বাংলায় তিন দিন ভারী বৃষ্টি চলবে। ১৯ তারিখ পর্যন্ত এই বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে।

গঙ্গা ও হুগলি নদী বরাবর ঘূর্ণাবর্ত রয়েছে। বঙ্গোপসাগর থেকে জলীয়বাষ্প আসছে। এবার বর্ষা আষাঢ় মাস পড়ার আগেই চলে এসেছে রাজ্যে। প্রথম সপ্তাহেই তুখর ব্যাটিং শুরু করল বর্ষা। তার জেরে এই মুহূর্তে বিপর্যস্ত দক্ষিণবঙ্গ। জোয়ারের কারণে গঙ্গার জল বাড়ছে। তাই লক গেট বন্ধ থাকায় কলকাতা দীর্ঘ সময় ধরে জলের তলায়। বেহালা, তারাতলা, খিদিরপুর, মোমিনপুর, বজবজ, উত্তর কলকাতার বিস্তীর্ণ অঞ্চল জলমগ্ন। মধ্য কলকাতার সুকিয়া স্ট্রিট, ঠনঠনিয়া, কলেজ স্ট্রিট, মুক্তারাম বাবু স্ট্রিট জলের নিচে। কলকাতার বহু একতলা বাড়িতে জল ঢুকে রয়েছে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন, এত বৃষ্টি আগে হয়নি। সাবধানে থাকার বার্তা দিয়েছেন তিনি।

আলিপুর আবহাওয়া দফতর জানিয়েছে, বুধবার রাত ১০টা থেকে সকাল ৬টা পর্যন্ত একটানা ভারী বৃষ্টি হয়েছে। সবচেয়ে বেশি বৃষ্টি হয় মোমিনপুরে। ১৭৯ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। তারপরে রয়েছে কালীঘাট। সেখানে ১৬৮ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। বেহালা ফ্লাইং ক্লাবে ১৬৩ মিলিমিটার, বালিগঞ্জে ১৪৮ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। উল্টোডাঙায় ৮৪ মিলিমিটার, বেলগাছিয়ায় ৮২ মিলিমিটার, মানিকতলায় ৭৭ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। দুপুরের পর থেকে বৃষ্টি থেমেছে। তবে ঝিরিঝিরি বৃষ্টি হয়ে চলেছে বিভিন্ন জায়গায়। তার উপর ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনার কথা জারি করেছে হাওয়া অফিস। জল যন্ত্রণা কোথায় গিয়ে দাঁড়াবে? সেই চর্চা শুরু হয়েছে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।