আজও সোনারপুর স্টেশনে রেল রোকো, বিক্ষোভ ছড়াচ্ছে

ফোর্থ পিলার

বৃহস্পতিবারও রেল রোকো আন্দোলন চলছে শিয়ালদহ দক্ষিণ শাখায়। গতকাল সোনারপুর স্টেশনে সাধারণ মানুষরা রেললাইনে বসে পড়েছিলেন। স্টাফ ট্রেন চলাচল করতে পারেনি দীর্ঘ সময়। নিত্য সাধারণ যাত্রীদের দাবি অবিলম্বে লোকাল ট্রেন পরিষেবা শুরু করতে হবে। বুধবার বিক্ষোভকারীরা শেষ পর্যন্ত অনুরোধের কারণে অবরোধ-বিক্ষোভ তুলে নিয়েছিলেন। কিন্তু বৃহস্পতিবার নতুন করে শুরু হল আন্দোলন।

সাত সকাল থেকেই শয়ে শয়ে মানুষ সোনারপুর স্টেশনে এসে জমা হয়। ফের শুরু হয়ে যায় রেল রোকো। এবার শুধু সোনারপুর নয়, আরও বেশ কিছু স্টেশনে নতুন করে তৈরি হয়েছে এই বিক্ষোভ কর্মসূচি। লোকাল ট্রেন চালুর দাবি দক্ষিণ শাখার একাধিক স্টেশনে উঠতে শুরু করেছে। ঘুটিয়ারি শরিফ, মল্লিকপুর স্টেশনে সাধারণ মানুষ বিক্ষোভ অবস্থান শুরু করে। মল্লিকপুর স্টেশনে রেল পুলিশের সঙ্গে সাধারণ মানুষের হাতাহাতি হওয়ার খবর এসেছে। পরিস্থিতি যথেষ্ট উদ্বেগজনক।

রেল গোটা ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। নবান্নে ইতিমধ্যেই রেলের তরফে চিঠি পাঠানো হয়েছে। লোকাল ট্রেন পরিষেবা শুরু করার দাবি অনেক আগে থেকেই উঠেছে। রেল দফতর চাইছে, লোকাল ট্রেন পরিষেবা শুরু হোক। কিন্তু নবান্ন সবুজ সঙ্কেত দিচ্ছে না। সে কারণে স্টাফ ট্রেন সংখ্যা বাড়িয়ে পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক করার চেষ্টা চালাচ্ছে রেল। এই পরিস্থিতিতে ট্রেনগুলিতে অত্যধিক ভিড় হচ্ছে। সামাজিক দূরত্ববিধি মেনে চলা সম্ভব হচ্ছে না। রেল করোনা ভাইরাস পরিস্থিতিতে এই বিষয়গুলোতে যথেষ্ট উদ্বেগ প্রকাশ করছে।

কিন্তু নবান্নের তরফ থেকে কোনওভাবেই লোকাল ট্রেন চালানোর জন্য সবুজ সংকেত দেওয়া হচ্ছে না। এই অবস্থানে সাধারণ খেটে খাওয়া মানুষরা বিপর্যস্ত। করোনার দ্বিতীয় ঢেউত বহু মানুষ কাজ হারাচ্ছেন। বেসরকারি অফিস কাছারি খুলে গিয়েছে। কিন্তু গণপরিবহণ ব্যবস্থা নেই। তাই প্রচুর টাকা খরচ করে প্রতিদিন যাতায়াত করতে হচ্ছে। দিন আনা দিন খাওয়া মানুষরা এবার আন্দোলনের পথে হাঁটলেন। আগামী দিনে বিক্ষোভ আরও একাধিক জায়গায় ছড়িয়ে পড়বে। এই আশঙ্কা করছে রেল।

বনগাঁ শাখাতেও সাধারণ মানুষ ট্রেনে সওয়ারি হচ্ছেন। প্রত্যেকটি ট্রেনেই যাত্রী সংখ্যা যথেষ্ট বেশি। স্টাফ ট্রেনের কোনও নিয়ম-কানুন আর থাকছে না। রেল কর্মীরাও যথেষ্ট দুশ্চিন্তায়। কোনও প্রতিবাদ এখন আর কাজে আসছে না। অবিলম্বে লোকাল ট্রেন পরিষেবা শুরু না করলে পরিস্থিতি আয়ত্তের বাইরে যাবে। এই উদ্বেগ প্রকাশ করছে একপক্ষ। লকডাউনের প্রথম পর্যায়ে দক্ষিণ শাখায় বহু স্টেশনে বিক্ষোভ চলেছিল। ঘুটিয়ারি শরিফ স্টেশনে ধুন্ধুমার বেঁধে যায়। এবার কোন বড় অঘটন চাইছে না রেল।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।