আজ মুখোমুখি কোহলি – স্মিথ, ওয়াংখেড়ের বাইশ গজে লড়াই

ফোর্থ পিলার

বিশ্বের দুটি সেরা টিমের আজ থেকে শুরু হচ্ছে লড়াই। ২২ গজের যুদ্ধে বিরাট কোহলি বনাম স্টিভ স্মিথ। এই খবর আগামী কয়েক সপ্তাহ ঘুরে বেড়াবে ভারতবর্ষের ক্রিকেট আকাশে। কে এগিয়ে আছে, তা এখনই বলা মুশকিল। তবে আগ্রাসী মনোভাব নিয়েই মাঠে নামছেন বিরাট কোহলি। অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবেন স্মিথও।

আজ ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে ভারতের সঙ্গে প্রথম ম্যাচ খেলতে নামবে অস্ট্রেলিয়া। উত্তেজনার পারদ চড়ছে। বিশেষজ্ঞরা অনেকেই বলছেন, এবারেই বিরাটদের আসল পরীক্ষা। তিনটি সিরিজেই একতরফা ম্যাচ খেলে কোহলিরা জিতেছেন। বাংলাদেশ, দক্ষিণ আফ্রিকা, শ্রীলঙ্কা কেউই খুব একটা প্রতিরোধ গড়ে তুলতে পারেনি। এবারে আসল প্রতিপক্ষ। কেমনভাবে বিরাট কোহলি ও ভারতীয় দল অস্ট্রেলিয়াকে আটকায় তা নিয়ে আলোচনা চলছেই।

প্রাক্তন ক্রিকেটাররা রীতিমতো উত্তেজিত। অস্ট্রেলিয়া বরাবর কঠিন প্রতিদ্বন্দ্বী। লাল বলে অস্ট্রেলিয়ার মতো বিধ্বংসী টিম এই মুহূর্তে দেখা যাবে না। পাশাপাশি সাদা বলে এগিয়ে আছে টিম ইন্ডিয়া। রোহিত শর্মা, কে এল রাহুল, শিখর ধাওয়ান, বিরাট কোহলি, জশপ্রীত বুমরাহ প্রত্যেকেই দুরন্ত ফর্মে রয়েছেন। অন্যদিকে অস্ট্রেলিয়ার ডেভিড ওয়ার্নার, স্টিভ স্মিথ, প্যাট কামিন্স, মিচেল স্টার্ক প্রত্যেকেই তারকা ক্রিকেটার। কাজেই যে প্রবল চাপ নিয়ে খেলতে হবে একথা সুনিশ্চিত।

নবদীপ সাইনির উপরেও অনেক কিছু নির্ভর করছে। ৫০ ওভারের খেলায় যধরে রাখার অবস্থান প্রয়োজন হয়। সেটি অত্যন্ত প্রয়োজনীয় বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। ভারতকে এই ক্ষেত্রে দুজন ভালো খেলোয়াড়কে বাদ দিয়ে দল নির্বাচন করতে হয়েছে। তার মধ্যে অন্যতম হার্দিক পান্ডিয়া। তিনি চোটের কারণে বাইরে ছিলেন। আরেকজন ভুবনেশ্বর কুমার। নির্ভরযোগ্যতার দিক থেকে বিরাট কোহলি একটু হলেও এই মুহূর্তে পিছিয়ে। মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যানদের আরও অনেক বেশি দায়িত্ব নিয়ে খেলতে হবে। ঋষভ পন্থ, শ্রেয়শ আইয়াররা যেভাবে দিনের-পর-দিন উইকেট ছুঁড়ে দিয়ে চলে আসছেন এবার তার ইতি টানা উচিত। এবারে তাদেরও পরীক্ষা।

গত ২০১৩ সাল থেকে ২৮ বার মুখোমুখি হয়েছে ভারত ও অস্ট্রেলিয়া। দুটি টিমই ১৩ টি করে ম্যাচ জিতেছে। এখন অবধি সব কিছু মিলিয়ে ৭৭ টি ম্যাচ জিতেছে অস্ট্রেলিয়া। ৫০ টি জিতেছে ভারত। নেট প্র্যাকটিসে বিরাট কোহলিরা অত্যন্ত ফুরফুরে মেজাজে ছিলেন। তাদের চেহারায়, চোখেমুখে আক্রমনাত্মক ভঙ্গিমা আরও বেশি করে দেখা গিয়েছে। ইতিমধ্যেই বুমরাহর বোলিং নিয়েও আলোচনা হয়েছে। অস্ট্রেলীয় বোলাররা বরাবর বুক লক্ষ্য করে বল করতে পারেন। বুমরা সেই একই ধরনের বল করতে পারেন কিনা তা নিয়েও বিতর্ক হয়েছে। এ ক্ষেত্রে বিরাট কোহলি জানিয়েছেন, একইভাবে বুক লক্ষ্য করেই বল বুমরাহ করবেন প্রয়োজনে।

এর আগের অস্ট্রেলিয়া সফরে বিরাট কোহলির সঙ্গে বাকযুদ্ধে জড়িয়ে পড়েছিল অস্ট্রেলিয়ার খেলোয়াড়রা। উত্তেজিত পরিস্থিতি তৈরি হয়েছিল মাঠে। আবার সেই অস্ট্রেলিয়া সফর। এবার ভারতের মাটিতে একের পর এক ওয়ানডে ম্যাচ। আজ উত্তেজনায় ফুঁসছে মুম্বইয়ের ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়াম। দিনরাতের লড়াইয়ে আক্রমণাত্মক হয়ে থাকবে বাইশ গজ।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।