আজ স্বামী খুনে সাজা ঘোষণা অনিন্দিতার

ফোর্থ পিলার

বারাসত ফাস্টট্রাক তৃতীয় কোর্টে সোমবার দোষী সাব্যস্ত হয়েছিলেন অনিন্দিতা। আজ তার সাজা ঘোষণা। বারাসাত কোর্ট চত্বরে রীতিমতো আজ যথেষ্ট উত্তেজনা রয়েছে। চিকিৎসক স্বামীকে মোবাইল ফোনের চার্জারের তার পেচিয়ে খুন করেছিলেন অনিন্দিতা। সুপ্রিমকোর্টে জামিন পেয়েছিলেন তিনি। দীর্ঘ সময় মামলা চলার পর আদালত অনিন্দিতাকে দোষী সাব্যস্ত করে।

স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে সম্পর্ক খুব একটা ভালো ছিল না। তাদের একটি ১৮ মাসের শিশুপুত্র ছিল সেই সময়। ২০১৮ সালের ২৫ নভেম্বর নিউটাউনের ডিবি ব্লকে নিজেদের ফ্ল্যাট থেকে মৃতদেহ উদ্ধার হয়েছিল রজতের। পুলিশ অস্বাভাবিক মৃত্যুর তদন্ত শুরু করে। মৃতের বাবা অভিযোগ করেছিলেন, ছেলেকে খুন করা হয়েছে। পুত্রবধূ সেই খুনের সঙ্গে যুক্ত। পুলিশ বিষয়টিতে কিছুটা হতবাক হয়েছিল। ময়নাতদন্তের রিপোর্টে জানা যায় শ্বাসরোধ করে খুন করা হয়েছে রজতকে।

অনিন্দিতা বহুবার ডিভোর্স চেয়েছে স্বামীর কাছে। ছেলে ছোট বলে সেই ডিভোর্স দিতে চাননি রজত। মৃত্যুর রাতে অনিন্দিতা ফেসবুকে লিখেছিলেন ‘বিবাহ গণ শৌচালয়।’ এই পোস্ট থেকে দাম্পত্যের সমস্যার বিষয়টি পরিষ্কার হয়ে গিয়েছিল। শুধু তাই নয় হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাট উদ্ধার করা হয়। পরে দেখা যায়, সেই রাতে তিনি বেশ কিছু পরিচিতের সঙ্গে কথা বলেছেন দাম্পত্য সমস্যা নিয়ে। গুগলে সার্চ করা হয়েছিল শ্বাসরোধ করে খুন করার অস্ত্র কি কি হতে পারে। পুলিশ এসব তথ্য দাখিল করেছিল আদালতে।

আজ আদালত কি রায় দেয় তার দিকে সকলে। সোমবার এজলাসে অঝোরে কেঁদে ফেলেছিলেন অনিন্দিতা। আইনজীবীদের উদ্দেশ্য রীতিমতো চিৎকার করতে থাকেন। কোনওভাবেই এজলাস ছেড়ে বের হতে চাননি তিনি। একপ্রকার জোর করে তাকে নিয়ে যাওয়া হয় জেলে। রজতের পরিবার চাইছে সর্বোচ্চ সাজা দেওয়া হোক। বারাসতের ফাস্টট্রাক তৃতীয় কোর্টের বিচারক সুজিত কুমার ঝা আজ রায় শোনাবেন। খুন, সাক্ষ্য প্রমাণ লোপাট সহ একাধিক ধারায় তাকে দোষী সাব্যস্ত করা হয়েছে ইতিমধ্যে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।