আট পাতার প্রশ্ন নিয়ে রুজিরার সামনে সিবিআইয়ের বিশেষ দল

ফোর্থ পিলার

অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের বাড়িতে পৌঁছল সিবিআইয়ের বিশেষ দল। বেলা ১১ টা বেজে ৩৬ মিনিটে সিবিআইয়ের টিম শান্তিনিকেতন বাড়ির সামনে আসে। গাড়ি থেকে নেমে তারা ভিতরে ঢুকে যান। মোট আটজন এসেছেন রুজিরা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে কথা বলতে। বিশেষ টিম তৈরি করা হয়েছে নিজাম প্যালেসের পক্ষ থেকে।

ব্যাংককের ব্যাঙ্কে রুজিরা বন্দ্যোপাধ্যায়ের একাউন্ট রয়েছে। সেখানে মোটা টাকার লেনদেন হয়েছে দীর্ঘ সময় ধরে। এই তথ্য নিজাম প্যালেসের কাছে রয়েছে। এই টাকা গরুপাচারের। এমনটাই মনে করছেন সিবিআই আধিকারিকরা। সেই বিষয়ে বিস্তারিত কথা বলার জন্য রুজিরা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে পৌঁছে গেল সিবিআইয়ের বিশেষ দল।

জানা যাচ্ছে, আট পাতার একটি দীর্ঘ প্রশ্ন তালিকা তৈরি করা হয়েছে। শুধু তাই নয় বিস্তারিত ব্যাখ্যা সিবিআই চাইছে এইসব প্রশ্নের। রুজিরার বয়ান লিখিত আকারে নেবেন গোয়েন্দারা। গতকাল সোমবার রুজিরার বোন মেনকা গম্ভীরকেও জিজ্ঞাসাবাদ করেছে সিবিআই। প্রায় তিন ঘণ্টা টানা জেরা হয় মেনকাকে। কি উত্তর পাওয়া গেল তার থেকে? সেই সম্পর্কে কোনও তথ্য সিবিআই জানায়নি।

রুজিরা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে আজ পৌঁছে গিয়েছেন সিবিআই আধিকারিকরা। রুজিরা আগেই জানিয়েছিলেন, তার বিদেশের ব্যাঙ্কে কোনও অ্যাকাউন্ট নেই। তাহলে কি করে তার নামে ব্যাংকক ও লন্ডনের ব্যাঙ্কে অ্যাকাউন্ট রয়েছে? সেই প্রশ্ন সিবিআই করতে পারে। শুধু তাই নয় ব্যাংককের ব্যাঙ্ক একাউন্টে লেনদেনের কাগজপত্র সিবিআই আধিকারিকদের কাছে রয়েছে। তারা সেইসব নিয়ে শান্তিনিকেতন বাসভবনে পৌঁছে গিয়েছেন বলে খবর।

রাজনৈতিকভাবে এই সিবিআই জিজ্ঞাসাবাদ অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ। বিজেপি গতকাল থেকেই রীতিমতো আরও চাপ বাড়িয়ে দিয়েছে। যে কোনও পরিস্থিতিতেই সিবিআই তাদের তদন্তের গতিপ্রকৃতি আরও দ্রুত করুক। এই দাবি উঠছে বিজেপির পক্ষ থেকে। শুভেন্দু অধিকারী বরাবর বলে এসেছেন, চৌকাট পেরোলেই অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে পৌঁছে যাবে সিবিআই।
সাহাগঞ্জের সভামঞ্চ থেকে শুভেন্দু আরও একবার সেই বক্তব্য রেখেছেন।

শুধু তাই নয়, খুব তাড়াতাড়ি তিনি অনুপ মাঝি ওরফে লালার ডায়েরি নিয়ে প্রচার শুরু করবেন। একের পর এক তথ্য কয়লা ও গরুপাচার সম্পর্কে মানুষের কাছে তিনি জানাবেন। এই হুঁশিয়ারি দিয়েছেন। সিবিআই আজ কি কি পদক্ষেপ গ্রহণ করে ? সেদিকে নজর রাখছে তৃণমূল কংগ্রেস।

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নবান্ন যাওয়ার আগে পৌঁছে গিয়েছিলেন অভিষেকের বাড়িতে। সেখানে আট মিনিট ছিলেন মমতা। মুখ্যমন্ত্রী বেরিয়ে যাওয়ার তিন মিনিটের মধ্যেই সিবিআইয়ের দল শান্তিনিকেতন পৌঁছায়। মুখ্যমন্ত্রীও বিষয়টি নিয়ে দুশ্চিন্তায় রয়েছে। এ কথাই মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।