আমেরিকায় করোনা আক্রান্ত এক কোটি, সাত দিনে সংক্রামিত ১০ লক্ষ

ফোর্থ পিলার

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে করোনা ভাইরাসের তৃতীয় ঢেউ চলছে। এই মুহূর্তে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা এক কোটি ছাড়িয়ে গেল। আমেরিকায়ই বিশ্বের একমাত্র দেশ। যেখানে এখন অবধি এত সংখ্যক করোনা আক্রান্তের সন্ধান পাওয়া গিয়েছে। চিকিৎসকরা জানান, গত সাত দিনে গড়ে ১০ লক্ষ মানুষ করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। মৃত্যুসংখ্যা এখন ঊর্ধ্বমুখী। করোনা ভাইরাস ইস্যুকে সামনে রেখে আমেরিকায় নির্বাচনে প্রচার করেছিলেন জো বাইডেন। মার্কিন রাষ্ট্রপতি ডোনাল্ড ট্রাম্প ব্যর্থ হয়েছেন। এই অভিযোগ বারবার করা হয়েছে।

গত ২৪ ঘন্টায় আমেরিকায় ১ লক্ষ ৩০ হাজার মানুষ করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। গত সাত দিনে আক্রান্তের হার রোজ ঊর্ধ্বমুখী। গত পাঁচ দিনে গড়ে দেড় লক্ষ করে করোনা আক্রান্তের হদিশ পাওয়া গিয়েছে। এখন অবধি আমেরিকায় ২ লক্ষ ৪০ হাজার মানুষ মারা গিয়েছেন। এখন দেশে প্রতিদিন গড়ে হাজার মানুষ মারা যাচ্ছেন করোনায়। মৃত্যুর হিসেবেও আমেরিকা প্রথম স্থানে রয়েছে। চিকিৎসকরা জানাচ্ছেন, আগামী দেড় মাস আমেরিকায় এই ঢেউ চলবে। করোনার নিউইয়র্ক, নিউজার্সি, পেনসেলভেনিয়া, জর্জিয়া সহ একাধিক জায়গায় সংক্রমণে ঢেউ দেখা যাচ্ছে।

করোনা ভাইরাস নিয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বরাবর আক্রমণ করে এসেছে চিনকে। কোনওভাবেই চিনকে ছাড়া হবে না। এ কথা পরিষ্কার দাবি করেছিলেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। পরবর্তী সময় করোনা ভাইরাস ইস্যু দেশে ভোটে প্রভাব বিস্তার করে। জো বাইডেন তার বক্তব্যে বরাবর করোনা ভাইরাস ইস্যুকে জোর দিয়েছেন। তিনি জানিয়েছিলেন, মার্কিন প্রেসিডেন্ট করোনা ভাইরাস রুখতে ব্যর্থ হয়েছেন। যদিও ডোনাল্ড ট্রাম্পকে এ কথায় গুরুত্ব দিতে দেখা যায়নি।

ডোনাল্ড ট্রাম্প নিজে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। চারদিনের মধ্যে সুস্থ হয়ে তিনি প্রচারে নেমে এসেছিলেন। দেখা গিয়েছে, তিনি মাস্ক পরেননি। শুধু তাই নয়, সামাজিক দূরত্ববিধি মেনে চলার বিষয় নিয়েও ডোনাল্ড ট্রাম্প বরাবর ভিন্ন মতামত দিয়ে এসেছেন। তথ্য বলছে ডোনাল্ড ট্রাম্পের সভা থেকে করোনা ভাইরাস ছড়ানোর সম্ভাবনা অনেকটাই বেড়ে গিয়েছিল। বহু মানুষ কোনও নিয়মনীতি ছাড়াই সভায় যোগ দিয়েছিল।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট হিসেবে জো বাইডেন জয়ী হয়েছেন। করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি নিয়ে সুষ্ঠু ব্যবস্থা হবে। এ কথা শোনা গিয়েছে তার মুখে। আগামী দিনে এই বিষয় নিয়ে টাক্স ফোর্স গঠন করা হবে। শুধু তাই নয়, করোনা ভাইরাসের জন্য যাবতীয় প্রচেষ্টা নেওয়া হবে। গোটা পৃথিবীতে আমেরিকা করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃত্যুর তালিকায় প্রথম স্থানে। পাঁচ কোটি পেরিয়ে গিয়েছে বিশ্বে মোট করণা আক্রান্তের সংখ্যা।

ভারতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। তবে সংক্রমণের মাত্রা কমেছে অক্টোবর মাস থেকে। এই মুহূর্তে পঁচাশি লক্ষ আক্রান্তের সংখ্যা ভারতে। আমেরিকার পরেই রয়েছে ভারত। আক্রান্তের বিচারে তৃতীয় স্থানে ব্রাজিল।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।