আমেরিকায় ৬৬ হাজার একদিনে আক্রান্ত, মৃত ৭৬০

ফোর্থ পিলার

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ফের করোনা ভাইরাস আক্রান্তের গ্রাফ ঊর্ধ্বমুখী। গত ২৪ ঘন্টায় আমেরিকায় সাড়ে ৬৬ হাজারের বেশি মানুষ করোনা ভাইরাস আক্রান্ত হয়েছেন। ৩৩ লক্ষ পেরিয়ে গিয়েছে আক্রান্তের সংখ্যা। আমেরিকার জনজীবন স্বাভাবিক হওয়ার পথে। এই পরিস্থিতিতে নতুন করে আক্রান্তের সংখ্যা লাফিয়ে বেড়েছে। উদ্বেগ প্রকাশ করছেন চিকিৎসক ও বিজ্ঞানীরা। গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৭৬০ জনের।

আমেরিকায় এখন করোনা ভাইরাস আক্রান্তের সংখ্যা মোট ৩৩,৫৫,৬৪৬। সংক্রমণে মৃত্যু হয়েছে ১,৩৭,৪০৩ জনের। সংক্রমণ সারিয়ে সুস্থ হয়েছেন ১৪,৯০,৪৪৬ জন। গোটা বিশ্বে করোনা ভাইরাস আক্রান্তের সংখ্যা ১,২৮,৪২,১১২। মৃত্যু হয়েছে ৫,৬৭,৬৫৩ জনের। সংক্রমণ সারিয়ে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৭৪,৭৮,১৯৬ জন। আক্রান্তের তালিকায় গোটা বিশ্বে আমেরিকা প্রথম স্থানে রয়েছে। দ্বিতীয় স্থানে ব্রাজিল। তৃতীয় স্থানে এই মুহূর্তে ভারত। চতুর্থ স্থানে রাশিয়া ও পঞ্চম স্থানে পেরু অবস্থান করছে।

এই প্রথম আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে মুখে মাস্ক পরতে দেখা গেল। এই বিষয় নিয়ে সাংবাদিকদের সামনে কোনও মুখ খোলেননি প্রেসিডেন্ট। তবে ঘনিষ্ঠমহলে জানিয়েছেন, তিনি কোনওদিনই মাস্ক পরার বিরোধিতা করেননি। এই বিষয়ে বিরোধী নন। প্রয়োজনীয় স্থানে তিনি অবশ্যই মাস্ক পরবেন। আমেরিকার জন হপকিনস বিশ্ববিদ্যালয়ের তরফ থেকে জানানো হয়েছে, করোনা ভাইরাস গ্রাফ সেদেশে ঊর্ধ্বমুখী। গত চারদিন ধরে আক্রান্তের সংখ্যা দৈনিক ৬০ হাজারের উপর ছিল। এর আগেও বিজ্ঞানীরা আমেরিকাকে সতর্ক করেছিলেন।

করোনা ভাইরাস সংক্রমণ দ্বিতীয় দফায় ছড়িয়ে পড়লে আমেরিকায় তা হবে ভয়ঙ্কর। বিজ্ঞানীরা প্রথম থেকেই এই দাবি করে আসছেন। তবে এখনও সেই পর্যায়ে আসেনি আমেরিকা। এমনটাই একাংশের মত। তবে নতুন করে সংক্রমণের মাত্রা বাড়ায় উদ্বিগ্ন ওয়াকিবহাল মহল। দক্ষিণ আমেরিকার বিভিন্ন প্রদেশে করোনা ভাইরাস এবার লাফিয়ে বাড়ছে। ফ্লোরিডা, টেক্সাস প্রভৃতি জায়গায় আক্রান্তের সংখ্যা প্রতিদিন ১০ হাজারের উপর এই মুহূর্তে। গত জুন মাস থেকে আমেরিকার সাধারণ মানুষ পথে নামতে শুরু করেছেন। বহু বিনোদন পার্ক খুলে গিয়েছে।

নিউইয়র্ক, নিউজার্সি শহরে আক্রান্তের সংখ্যা এখন অনেকটাই কম। তবে পরিস্থিতি যে কোনও সময় আবার ভয়াবহ হতে পারে। এইসব শহর থেকে সাধারণ মানুষকে বাইরে বের হতে দেওয়া হচ্ছে না। শহরের মধ্যেই সাধারণ মানুষ ঘোরাফেরা করতে পারেন। এমনটাই জানিয়েছেন সেই প্রদেশের সরকার। তবে বিনোদন পার্ক গুলোতে মাত্রাছাড়া ভিড় দুশ্চিন্তায় ফেলেছে বিজ্ঞানীদের। শুধু তাই নয়, সমুদ্র সৈকতে সাধারণ মানুষ উচ্ছ্বাসের বান ডেকেছে। করোনা পরিস্থিতি আগামী দিনে আরও ভয়াবহ আকার নিতে পারে এমনটাই মনে করা হচ্ছে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।