এবার কোয়েম্বাটোর, ১৭ বছরের কিশোরীকে গণধর্ষণ করল ছ’জন

ফোর্থ পিলার

হায়দরাবাদের ঘটনা প্রকাশিত হওয়ার পর দেশজুড়ে বিভিন্ন জায়গায় একাধিক ধর্ষণের ঘটনা প্রকাশিত হচ্ছে। গণধর্ষণের একাধিক বীভৎস ঘটনা নাড়িয়ে দিচ্ছে শিক্ষিত সমাজকে। হায়দরাবাদ, উত্তরপ্রদেশের পর এক স্কুলছাত্রীর ধর্ষণের খবর পাওয়া গেল কোয়েম্বাটোর থেকে। গত ২৬ নভেম্বর তাকে গণধর্ষণ করা হয়। আশঙ্কাজনক অবস্থায় সে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

পুলিশ ইতিমধ্যেই চারজনকে গ্রেফতার করেছে। বাকি দুজন পলাতক। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, ঘটনাটি কোয়েম্বাটোরের সিরানায়াকান গ্রামের। ১৭ বছরের ওই কিশোরীর বন্ধুর জন্মদিন ছিল ২৬ নভেম্বর। গ্রামের বাইরে একটি পার্কে জন্মদিনের অনুষ্ঠানের আয়োজন হয়েছিল। কিশোরী নিমন্ত্রণরক্ষার জন্য যায়। রাত নটার সময় তার বন্ধুর সঙ্গে ওই কিশোরী নিজের বাড়ি ফিরছিল অনুষ্ঠান থেকে।

রাস্তায় তাদের পথ আটকায় ছ’জন যুবক। বন্ধুকে মারধর করা হয়। কিশোরীকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয় গাড়িতে। গ্রামের বাইরে একটি নির্জন স্থানে তাকে নিয়ে গিয়ে ছ’জন মিলে গণধর্ষণ করে। রক্তাক্ত হয়ে কিশোরী জ্ঞান হারায়। এলাকা থেকে পালিয়ে যায় যুবকেরা। পরদিন সকালে গ্রামের মানুষজন কিশোরীকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে। সে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।
রক্তক্ষরণ হয়েছে গোটা রাত। তার ওপরে পাশবিক অত্যাচার। শরীরের অনেক জায়গায় ক্ষত ও আঘাতের চিহ্ন।

চিকিৎসকরা সব রকম ব্যবস্থা নিয়েছেন। তার সুস্থ হয়ে ওঠার সব চেষ্টা চালানো হচ্ছে। বিভিন্ন জায়গায় পুলিশ তল্লাশি চালায়। এখন অবধি চার জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তবে ঘটনার মূল পাণ্ডা এখনও অধরা। বাকি দুজনের খোঁজে তল্লাশি চালানো হচ্ছে। পুলিশ অপহরণ ও গণধর্ষণের অভিযোগ দায়ের করেছে তাদের বিরুদ্ধে। যাতে ধৃতরা কড়া সাজা পায় সেই চেষ্টাই চালানো হবে বলে প্রশাসন সূত্রে জানানো হয়েছে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।