“এবার লালার ডায়েরিটা নিয়ে মাঠে নামব। তৃণমূল সাবধান”, হুঁশিয়ারি শুভেন্দুর

ফোর্থ পিলার

“এবার লালার ডায়েরিটা নিয়ে মাঠে নামব। তৃণমূল সাবধান।” রীতিমতো জোরালো কন্ঠে শুভেন্দু অধিকারী হুংকার ছাড়লেন। কোনওভাবেই তৃণমূল কংগ্রেসকে এতটুকু ফাঁক দিতে রাজি নন শুভেন্দু অধিকারী। সাহাগঞ্জের মাঠ থেকে ফের অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় ও তৃণমূল কংগ্রেসকে হুঁশিয়ারি দিলেন শুভেন্দু।

অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের বাড়িতে সিবিআই পৌঁছে গিয়েছে। শ্যালিকা মেনকা গম্ভীরকে তিন ঘণ্টা জেরা করেছে সিবিআই। লন্ডনের ব্যাঙ্কে এত টাকা কি করে জমা পড়ল? সেই প্রশ্ন করেছেন আধিকারিকরা। আগামী কাল মঙ্গলবার অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের স্ত্রী রুজিরা বন্দ্যোপাধ্যায়কে জিজ্ঞাসাবাদ করবে সিবিআই। এই পরিস্থিতিতে বিজেপি আরও চাপ বাড়াচ্ছে। শুভেন্দু অধিকারী স্বভাবসুলভ ভঙ্গিতে আক্রমণের সুর আরও চওড়া করলেন সোমবার।

গতকাল এই স্লোগান বলেছিলেন বিজেপি সাংসদ বাবুল সুপ্রিয়। এদিন শুভেন্দু অধিকারী বলেন, “কৃষ্ণ কৃষ্ণ হরে হরে। ভাইপো যাবে শ্রীঘরে। ভাইপোকে শ্রীঘরে যেতেই হবে। আর জয় শ্রী রাম বললেই দিদিমণি রেগে যাচ্ছে।” এরপর গলার ঝাঁঝ আরও বাড়ান তিনি। থাইল্যান্ডের ব্যাঙ্কের রসিদের কথা মনে করান। শুভেন্দু হুঙ্কার দিয়ে বলেন, “খুব বড় বড় কথা না? কাঁচকলা করবে সিবিআই, ইডি? তাহলে কালকে কী হল?”

এরপর বলেন, “এখন তো দুয়ারে সরকার বলছে না। এখন বলছে, দুয়ারে সিবিআই। কয়লাচোর, পাথরচোর, বালিচোর, গরুপাচারকারি। আমরা বলেছিলাম, থাইল্যান্ডের রাজধানী ব্যাংককে টাকা জমা করিয়েছে। শুধু তো রসিদটা দেখিয়েছিলাম থাইল্যান্ডের ব্যাঙ্কের। এবার লালার ডায়েরিটা নিয়ে মাঠে নামবো। তৃণমূল সাবধান।” এই ডায়েরির কথা আগেও বলেছেন শুভেন্দু। এবারও বললেন।

অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় কয়লাপাচার, গরুপাচার, পাথরপাচারের সঙ্গে যুক্ত। পাচারের থেকে পাওয়া টাকা বিদেশের একাউন্টে জমা পড়ছে। এই অভিযোগ শুভেন্দু অধিকারী একাধিকবার করেছেন। তাই নিয়ে রাজ্য রাজনীতিতে আক্রমণ প্রতি আক্রমণ চলছে। এই অবস্থায় ফের সরব হলেন শুভেন্দু। তিনি আগেও বলেছেন, আর এক পা এগোলে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে পৌঁছে যাবে সিবিআই। চৌকাট পেরোনোর অপেক্ষা। সেই ঘটনা ঘটেছে।

কয়লা পাচারের টাকা অভিষেকের স্ত্রীর বিদেশের ব্যাঙ্কে জমা পড়েছে। সেই বিষয় নিয়ে জিজ্ঞাসা করতে চায় সিবিআই। রাজনীতিতে এই ঘটনা রীতিমতো এখন হটকেক। এবার লালার ডায়েরি নিয়ে শুভেন্দু অধিকারী আওয়াজ তোলেন। তাঁর কাছে লালার ডায়েরি রয়েছে। কত টাকা কাকে কিভাবে দেওয়া হয়েছে? সেখানে তার হিসেব রয়েছে বলে একসময় জানা গিয়েছিল। আগামী প্রচারে তিনি কীভাবে এই ডাইরি সংক্রান্ত বিষয় তুলে ধরেন! অপেক্ষায় রাজনৈতিক মহল।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।