ওয়াশিংটন ডিসিতে চলছে কার্ফু, মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৪

ফোর্থ পিলার

ওয়াশিংটন ডিসির ক্যাপিটলে হামলার ঘটনায় মৃতের সংখ্যা বাড়ল। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত চারজন সাধারণ মানুষ মারা গিয়েছেন। আমেরিকায় পুলিশের গুলিতে এক মহিলা মারা গিয়েছেন। তার নাম অ্যাশলি ব্যাবিট। তিনি নিজে বিদ্রোহী বিক্ষোভকারীদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বলে জানানো হচ্ছে। গোটা ওয়াশিংটন ডিসি কারফিউতে মুড়ে ফেলা হয়েছে। গোটা বিশ্ব আমেরিকার এই ঘটনায় রীতিমতো ক্ষোভ প্রকাশ করেছে। মার্কিন গণতান্ত্রিক ইতিহাসে এই ঘটনা একটি কালো দিন। এ কথাই বলছেন রাজনৈতিক মহল।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি মন্তব্য করেছেন এই ঘটনায়। রীতিমতো অস্বস্তিকর এই ঘটনা। এই ঘটনা সম্পর্কে মত প্রকাশ করেছেন। কার্যত এই ঘটনা চিনকে উৎসাহ দিয়েছে। ‘সুন্দর ছবি’ এই কথাই জানাচ্ছে চিন। এই মন্তব্য থেকে পরিষ্কার তাদের মনোভাব। ভারতীয় সময় অনুযায়ী শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ৫২ জনকে এই হামলার ঘটনায় গ্রেফতার করা হয়েছে। আমেরিকার প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা ঘটনাকে অত্যন্ত লজ্জাজনক বলে জানিয়েছেন।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বলেছেন, “ওয়াশিংটন ডিসির এই হামলা, হিংসা অত্যন্ত উদ্বেগের। শান্তিপূর্ণভাবে ক্ষমতার হস্তান্তর হওয়া উচিৎ। গণতান্ত্রিক পদ্ধতিকে এভাবে আটকানো যায় না।” ক্যাপিটল ভবনে এই হামলার পর সারা বিশ্বে নিন্দার ঝড় উঠেছে। ট্রাম্পের সঙ্গ ছাড়ছেন অনেক হোয়াইট হাউসের আধিকারিক। পদত্যাগ করেছেন মার্কিন ফার্স্ট লেডি মেলানিয়ার চিফ অব স্টাফ স্টেফানি গ্রিসহাম। কড়া নিন্দা করেছেন হোয়াইট হাউসের ডেপুটি প্রেস সেক্রেটারি সারাহ ম্যাথিউস ও রিপাবলিকান কেলি লয়েফলার।

পুলিশ ও নিরাপত্তা কর্মীদের মারে বহু মানুষ জখম হয়েছেন। ডোনাল্ড ট্রাম্প এখনও মার্কিন প্রেসিডেন্ট ভোটে হারতে নারাজ। জো বাইডেন কয়েক ঘন্টা পরে আমেরিকার প্রেসিডেন্ট হিসেবে ঘোষিত হতে পারেন। শেষ মুহূর্তে সেটি বানচাল করতে এই হামলা বলে মনে করা হচ্ছে। সম্পূর্ণ ঘটনার জন্য ডোনাল্ড ট্রাম্পকে দায়ী করছে একপক্ষ। তার উস্কানিতে আমেরিকার ইতিহাসে এই ন্যক্কারজনক ঘটনা ঘটল মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল। ক্যাপিটাল বিল্ডিংয়ের সামনে বিশৃঙ্খলা চূড়ান্ত পর্যায়ে গেল বুধবার।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।