করোনা টেস্টের জন্য ১৫০০ টাকা দিতে হবে, নির্দেশ রাজ্য সরকারের

ফোর্থ পিলার

করোনা ভাইরাস টেস্টের জন্য আবারও টাকার অঙ্ক বেঁধে দিল রাজ্য সরকার। আজ মন্ত্রিসভার বৈঠক হয়। সেখানেই এই বিষয় নিয়ে বিস্তারিত কথাবার্তা হয়েছে। দেড় হাজার টাকা এখন করোনা ভাইরাস পরীক্ষার জন্য সাধারণ মানুষকে দিতে হবে। এর আগে ২২৫০ টাকা টেস্টের জন্য নির্ধারিত করেছিল রাজ্য সরকার। এছাড়াও রাজ্যে করোন্স ট্রিটমেন্ট – এর জন্য বেড বাড়ানো হচ্ছে।

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন, পরিস্থিতি আগামী দিনের মোকাবিলা করতে হবে। রাজ্যে গোষ্ঠী সংক্রমণ শুরু হয়েছে। উৎসব পরিস্থিতি বুঝে সামাজিক দূরত্ব মেনে পালন করা উচিত। এর আগে করোনা ভাইরাস ট্রিটমেন্টের জন্য বিভিন্ন জায়গায় বিভিন্ন অঙ্কের টাকা নেওয়া হচ্ছিল। এখনও করোনা টেস্টের জন্য বহু জায়গাতে অনেক বেশি টাকা নেওয়া হয় বলে অভিযোগ। একেকটি করোনা টেস্ট – এর জন্য সাড়ে চার থেকে পাঁচ হাজার টাকা পর্যন্ত নেওয়া হয়েছে। কোথাও ৬ হাজার টাকা নেওয়া হয়েছে টেস্টের জন্য।

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন, এখন থেকে দেড় হাজার টাকা করোনা ভাইরাস টেস্টের জন্য নিতে হবে। রাজ্যের সব চিকিৎসা ক্ষেত্রে করোনা টেস্টের জন্য এই টাকা ঠিক করা হয়েছে। এর আগে ২২৫০ টাকা নির্ধারণ করে দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী টেস্টের জন্য। তবে চলতি মাসের শুরুতে রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের পক্ষ থেকে টেস্টের জন্য একটি অংক নির্ধারণ করা হয়। ১২০১ টাকা টেস্টের জন্য লাগবে। নোটিশ জারি করা হয়েছিল স্বাস্থ্য দফতর থেকে। যদিও পরে সেই নোটিশ তুলে নেওয়া হয়। এই নিয়ে বিভ্রান্তি ছড়িয়েছিল যথেষ্ট।

জানা গিয়েছে করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্য আরও ৬০০ টি বেড বাড়ানো হচ্ছে। এই বেডের মধ্যে আইসিইউ পরিষেবাও রয়েছে। এছাড়াও রাজ্যে ২৪৭৫ জন নার্স নিয়োগ করা হবে। শহরের বাইরে যেসব ডাক্তার রয়েছেন, তাদের ব্যবহার করার ক্ষেত্রে চিন্তাভাবনা চলছে। ক্লিনিক্যাল এস্টাবলিশমেন্ট অ্যাক্ট – এর মাধ্যমে তাদের দিয়ে চিকিৎসা করানো যায় কিনা ভাবনা চিন্তা চলছে। জরুরি পরিষেবা সঙ্গে যুক্ত স্বাস্থ্য কর্মীদের ছুটি উৎসবের সময় বাতিল হয়ে গিয়েছে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।