করোনা যোদ্ধাদের বিমা প্রকল্প বাতিল করল কেন্দ্রীয় সরকার

ফোর্থ পিলার

আর মিলবে না বিমা। করোনা যোদ্ধাদের জন্য বিমার ব্যবস্থা করেছিল কেন্দ্রীয় সরকার। সেই সিদ্ধান্ত থেকে সরে এল বিজেপি সরকার। করোনা যোদ্ধারা মারা গেলে ৫০ লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণ পাওয়া যাবে। অতিমারি সময়ে এই কথা ঘোষণা করেছিল কেন্দ্রীয় সরকার। এবার সেই সিদ্ধান্ত তুলে নেওয়া হল। নার্স, চিকিৎসক, স্বাস্থ্য ও সাফাইকর্মীদের জন্য এই বিমা ছিল। নতুন করে করোনা যোদ্ধাদের জন্য পরিকল্পনা করা হচ্ছে। শীঘ্রই চালু করা হবে। এই কথাও বলা হয়েছে সরকারের তরফে।

অতিমারির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে নেমেছিলেন চিকিৎসক, নার্স, স্বাস্থ্যকর্মীরা। তাদের মৃত্যু হলে পরিবারকে দেওয়া হত ৫০ লক্ষ টাকা সাহায্য। পুরসভার নিকাশি কর্মী এবং আশা কর্মীদেরও এই প্রকল্পের মধ্যে আনা হয়। এবার আর এই বিমা চালু রাখা হচ্ছে না। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যসচিব রাজেশ ভূষণ সব রাজ্যের মুখ্যসচিবদের চিঠি দিয়েছেন। ডাক্তার-নার্স-স্বাস্থ্যকর্মীদের জীবনবিমা প্রকল্পের মেয়াদ বাড়ানো হচ্ছে না।

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যসচিব রাজেশ ভূষণ জানিয়েছেন, এখনও পর্যন্ত মোট ২৮৭ জন করোনা যোদ্ধার পরিবার এই প্রকল্পের সুবিধা পেয়েছেন। ২০২০ সালের ৩০ মার্চ থেকে এই বিমা চালু হয়েছিল৷ তিন মাসের জন্য এই বিমা প্রথমে চালু হয়। পরে তার মেয়াদ বাড়ানো হয়। ২০২১ সালের ২৪ মার্চ পর্যন্ত মেয়াদ বাড়ানো হয়। ২৪ মার্চের আগে কারও মৃত্যু হলে পরিবার বিমার (Insurance টাকা পাবেন। তারপর থেকে আর সুবিধা মিলবে না।

করোনা ভাইরাস আবহে ভারতবর্ষ লকডাউনে যায় গত বছর। চিকিৎসক-নার্স স্বাস্থ্যকর্মীরা মারা যাচ্ছিলেন সেই সময়। কেন্দ্রীয় সরকার এই বিমার কথা ঘোষণা করেছিল। স্বাস্থ্য বিভাগের সঙ্গে জড়িত থাকা ব্যক্তিদের জন্য বিশেষ সম্মানের ব্যবস্থা হয়। সেনাবাহিনীর কপ্টার থেকে হাসপাতালগুলির উপরে ফুল ফেলা হয়েছিল। এই অনন্য সম্মানে দেশের একটা বড় অংশ মুগ্ধ হয়। চিকিৎসকরাও আরও বেশি করে উদ্বুদ্ধ হয়েছিলেন এই কাজের ক্ষেত্রে। এই বছর কেন্দ্রীয় সরকারের এই সিদ্ধান্ত নিল। প্রশ্ন দেখা দিয়েছে, কর্মীদের সম্মান দেওয়া বিষয়টি তাহলে কি লোক দেখানো ছিল? চলতি বছর অনেক বেশি আক্রান্ত হচ্ছেন। মৃত্যু হয়েছে বহু মানুষের। বিমার প্রয়োজন বেশি করে দেখা যাচ্ছে। সে সময় কেন্দ্রীয় সরকার প্রকল্প বাতিল করে দিল।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।