কলকাতা হাওড়ায় বন্ধ ফেরি চলাচল, বাণ আসতে পারে গঙ্গাতে, নিরাপত্তা বাড়ানো হল

ফোর্থ পিলার

প্রবল ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের দাপট কলকাতাতেও পড়বে। সেজন্য শনিবার সকাল থেকে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে কলকাতা – হাওড়ার সব ফেরি চলাচল। কলকাতা, হাওড়ার সমস্ত ঘাটের ফেরি চলাচল আজ বন্ধ রাখা হয়েছে। আগামীকালও ফেরি চলাচল বন্ধ থাকবে এমনটা মনে করা হচ্ছে। ঘূর্ণিঝড়ের দাপটে গঙ্গার কি পরিস্থিতি থাকে, কতটা জলের স্রোত, ঢেউ বারে তার উপর লক্ষ্য রেখেই ফেরি চলাচল করবে আগামী দিনে।

ইতিমধ্যেই কলকাতা পুলিশ ও রিভার কোস্ট থানার পক্ষ থেকে গঙ্গার ঘাটগুলিতে নিরাপত্তা বাড়ানো হয়েছে। ফেরি চলাচল বন্ধ হলেও যাতে কোনও মানুষ স্নান করা বা অন্যান্য কাজের জন্য ঘাটের ভিড় না করতে পারেন তার দিকে নজর দেওয়া হয়েছে। গতকালই পুলিশের তরফ থেকে নৌকা ও বোটগুলিকে নির্দিষ্ট দিকে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। যে সব ছোট ছোট জাহাজ দাঁড়িয়ে থাকে, তাদের নোঙরও মজবুত করা হয়েছে।
নিরাপত্তার জন্য তৈরি হাওড়া কলকাতার মধ্যে বহু নিত্যযাত্রী ফেরির মাধ্যমে যাতায়াত করে কিন্তু দুর্যোগের সময় যে কোনও দুর্ঘটনা ঘটতে পারে সে কারণে ফেরি চলাচল নিষিদ্ধ করা হয়েছে আজ। শনিবার আবহাওয়া দফতর সূত্রে খবর, কলকাতার উপরে ঝড়ের গতিবেগ থাকবে সর্বোচ্চ ৭০ কিলোমিটার।

সাগরে ঘূর্ণিঝড় আঘাত আনবে। গঙ্গাতে জলোচ্ছ্বাস হবার সম্ভাবনা থাকছে। ভারী বৃষ্টির কারণে জল বাড়বে গঙ্গায়। স্রোতও থাকবে অনেকটাই বেশি। সেই কারণেই আগাম সর্তকতা ও নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। ফেরি চলাচল বন্ধ কলকাতা হাওড়া আশেপাশের অন্যান্য অংশের ঘাটগুলিতেও। ফেরি চলাচল বন্ধ দক্ষিণেশ্বর, বেলুর, কোন্নগর, চন্দননগর, শ্যামনগর, খড়দহ ঘাটগুলিতে। বাবুঘাট, প্রিন্সেপ ঘাটে নৌকাকে অত্যন্ত শক্ত করে বেঁধে রাখা হয়েছে। বহু নৌকা নিরাপদ জায়গায় বাঁধা রয়েছে।

লঞ্চগুলির যাতে কোনও ক্ষতি না হয় তার জন্য নেওয়া হয়েছে চূড়ান্ত ব্যবস্থা। গত দু’বছরের স্মৃতি জানান দিচ্ছে, গঙ্গায় দুর্যোগের দিন ও পরে বান আসে। সেই বানে অতি সম্প্রতি বেশকিছু জেটি ভেঙে গিয়েছে কলকাতা ও সংলগ্ন অঞ্চলে। জলের গতিবেগ ও স্রোত থাকে অত্যন্ত বেশি। সেজন্যই সমস্ত নিরাপত্তা খতিয়ে দেখে সাধারণ মানুষের চলাচল সম্পূর্ণ বন্ধ রাখা হয়েছে।

ছবি : রাহুল

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।