কাবুল বিশ্ববিদ্যালয়ে বইমেলায় জঙ্গিহানা, মৃত কমপক্ষে ২৫

ফোর্থ পিলার

কাবুল বিশ্ববিদ্যালয়ে জঙ্গিহানার ঘটনা ঘটেছে। জঙ্গিরা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের ভিতরে ঢুকে এলোপাথাড়ি গুলি চালিয়েছে। ঘটনায় কমপক্ষে ২৫ জনের মৃত্যুর আশঙ্কা করা হচ্ছে। হতাহতের সংখ্যা অনেক বেশি। গোটা এলাকাজুড়ে এখন চরম আতঙ্ক। জানা গিয়েছে, সোমবার এই জঙ্গিহানার ঘটনা ঘটে। কাবুল বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গণে আফগান- ইরানিয়ান বইমেলা চলছিল। সেখানেই এই জঙ্গি হামলা ঘটেছে।

কাবুল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পাওয়া সূত্র অনুযায়ী ইরানের অনেক অতিথি এদিন এসেছেন। বহু প্রকাশক ইরানের থেকে তাদের সম্ভার নিয়ে এসেছেন এই বইমেলায়। বহু মানুষ এই বইমেলা নিয়ে উৎসাহিত ছিলেন। তারা সোমবার জড়ো হয়েছিলেন বইমেলা প্রাঙ্গনে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিতরে ক্লাস চলছিল। সেসময় এই জঙ্গি হামলা ঘটে।

জঙ্গিরা ক্যাম্পাসের ভিতরে ঢুকে এলোপাথাড়ি গুলি চালাতে শুরু করে। প্রাণ বাঁচাতে বহু মানুষ এদিক-ওদিক ছোটাছুটি করেন। হুড়োহুড়ি পড়ে যায়। ক্যাম্পাসে আতঙ্কের ছবি তখন সর্বত্র। অন্যদিকে ক্লাস চলছিল ভিতরে। অধ্যাপক অধ্যাপিকারা উপস্থিত। পড়ুয়ারাও ক্যাম্পাসে রয়েছে। বাইরে থেকে ধারাবাহিকভাবে গুলির শব্দ ভেসে আসছে। আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে অন্দরেও। পড়ুয়ারা কান্নাকাটি জুড়ে দিয়েছেন। জঙ্গিরা ভিতরে ঢুকে আক্রমণ চালায়নি। এই কথা জানা যাচ্ছে।

কাবুলের সেনাবাহিনী বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গন ঘিরে ফেলে। জঙ্গিদের সঙ্গে তাদেরও গুলি বিনিময় হয় বলে খবর। এখন অবধি এর থেকে বেশি কোনও তথ্য এসে পৌঁছয়নি। মনে করা হচ্ছে, বইমেলা প্রাঙ্গণে হামলার মূল ছক জঙ্গিরা করেছিল। ২৫ জনের বেশি মারা যেতে পারেন এই জঙ্গি হামলায়। এখন অবধি তেমন ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে। গুলিতে জখম বহু মানুষ।

এই জঙ্গি হামলার ঘটনার দায় এখন অবধি কোনও সংগঠন স্বীকার করেনি। গতবছর বিশ্ববিদ্যালয় গেটের বাইরে জঙ্গি হামলা হয়েছিল। বিস্ফোরণে ৮ জন মারা গিয়েছিলেন। ২০১৬ সালে আমেরিকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাইরে জঙ্গি হামলা ঘটে। সেই হামলায় ১০ জন মারা গিয়েছেন। এদিনের হামলায় কতজন নিরপরাধের প্রাণ যায়! সেই আশঙ্কা করা হচ্ছে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।