কোপা আমেরিকার রঙ এবার নীল-সাদা, ২৮ বছর পর আর্জেন্টিনার শাপমুক্তি

ফোর্থ পিলার

সাম্বা ঝড় হল না। বরং মারকানায় ব্রাজিল ফুটবল গণ্ডির মধ্যে আবদ্ধ হয়ে থাকল। বিপক্ষ শিবিরে পেনাল্টি বক্সের মধ্যে কোনও আক্রমণ শানাতে পারল না নেইমাররা। তিতের ছেলেরা চেষ্টা খুব একটা করেননি, এমন নয়। কিন্তু ক্রমাগত মিস পাস ও খেলার মাঝে খেই হারিয়ে ফেলা। ব্রাজিলকে শেষ পর্যন্ত আটকে দিল। কোপা আমেরিকায় দীর্ঘ ২৮ বছর পর শাপমুক্তি হল আর্জেন্টিনার। লিওনেল মেসির মাধ্যমে কোপা আমেরিকা কাপ নীল সাদার দেশে।

অন্যদিকে ঘরের মাঠে কোপা আমেরিকা হারালো ব্রাজিল। আয়োজক দেশ হিসেবে কখনও অতীতে হারেনি ব্রাজিল। সব সময় প্রাধান্য নিয়ে ব্রাজিল খেলেছে কোপা আমেরিকায়। এবার সেই অঘটন ঘটল। খেলার শুরু থেকেই ব্রাজিল অনেকটা ছন্নছাড়া। সেমি ফাইনাল পর্যন্ত যে টিমকে দেখা গিয়েছে, তার চরিত্র ফাইনালে দেখা গেল না। ২২ মিনিটের মাথায় আর্জেন্টিনা স্ট্রাইকার এঞ্জেলো ডি মারিয়া অসাধারণ গোল করলেন। ১-০ গোলে এগিয়ে গেল আর্জেন্টিনা। আর সেখান থেকেই ক্রমশ মাঠের মধ্যে চাপ বাড়াতে শুরু করলেন মেসিরা।

নেইমাররা মাঝমাঠের পর থেকে খুব একটা স্বাচ্ছন্দে ফুটবল খেলতে পারেননি। আর্জেন্টিনা ও ব্রাজিল কার্যত বল নিয়ে হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়েছে। মাঠের উত্তেজনা ক্রমশ কথা-কাটাকাটির মধ্যে চলে যায়। অনবরত ফাউল হতে থাকে দুই শিবিরে। ব্রাজিল এই ম্যাচে তিনটি হলুদ কার্ড দেখেছে। যা অতীত ইতিহাসে খুঁজে বেড়াতে হয়। আর্জেন্টিনাও প্রতিপক্ষকে রীতিমতো আক্রমণের ভাবনাতেই ছিল। সেক্ষেত্রে রেফারি অনেকটাই পরিস্থিতি শান্ত করে খেলা চালিয়ে গিয়েছেন। দ্বিতীয়ার্ধের পরে ব্রাজিল কিছুটা আক্রমণের মধ্যে গিয়েছিল।

৫৩ মিনিটে ব্রাজিল আর্জেন্টিনার জালে বল ঢোকায়। কিন্তু অফসাইড ছিল সেটি। তাই গোল বাতিল হয়ে যায়। এরপর দুটি জোরালো শট আর্জেন্টিনার গোলে ধেয়ে আসে। কিন্তু গোলরক্ষক অসাধারণ দক্ষতায় দুটি বলই বাঁচিয়ে ফেলেন। ফলে আরও চাপ বেড়ে যায় ব্রাজিলের উপর। খেলার শেষভাগে এসে সহজ গোল মিস করেন মেসি। কয়েক হাত দূরে তিন কাঠি। কিন্তু সেই বল জালে জড়াতে পারেন না তিনি। দর্শকরাও হতবাক হয়ে যান এই অবস্থানে। ফাইনালে মেসি তার নিজের পরিচিত খেলা খেলতে পারেননি। তবুও তার নেতৃত্বে কোপা আমেরিকা কাপ আর্জেন্টিনার ঘরে এল।

শেষ পাঁচ মিনিট আক্রমণের মুহূর্ত ছিল আর্জেন্টিনার। কিন্তু নতুন করে আর গোলের সম্ভাবনা তৈরি হয়নি। ব্রাজিল বরাবর আক্রমণাত্মক ফুটবল খেলায় বিশ্বাসী। কিন্তু কোপা আমেরিকার ফাইনালে ব্রাজিল বড়ই ম্রিয়মাণ। কোনওভাবেই এই ব্রাজিলকে এগিয়ে রাখা গেল না। আর্জেন্টিনা নিজেদের ধারাবাহিকতা বরাবর রেখে এসেছে ফাইনাল ম্যাচে। রিও দি জেনেরিও কার্যত হতাশায় ডুবতে শুরু করে। ৭০ মিনিটের পর থেকেই আর্জেন্টিনার দর্শকদের মধ্যে শুরু হয়ে যায় উন্মাদনা। ২৮ বছর পর কোপা আমেরিকা জয়ের স্বাদ তারা পেতে অনুভব করে।

গোটা বিশ্ব দুই ভাগে ভাগ হয়ে গিয়েছিল। ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা বরাবর যুযুধান প্রতিপক্ষ। এবারে কোপা আমেরিকায় মেসিরা জিতলেন। ২০১৯ সালে শেষবার ব্রাজিল আর্জেন্টিনা মুখোমুখি হয়েছিল। সেবারে ব্রাজিল হেরে যায়। খেলা শেষে নেইমার জুনিয়রকে কান্নায় ভেঙে পড়তে দেখা গিয়েছিল। একাধিক সহজ সুযোগ তারা তৈরি করে উঠতে পারেনি। তার খেসারত দিতে হল।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।