ক্যাপিটাল বিল্ডিংয়ে ট্রাম্প সমর্থকদের হামলা, গুলিতে মৃত্যু একজনের

ফোর্থ পিলার

আমেরিকার গণতান্ত্রিক ইতিহাসে ‘কালো দিন’ হিসেবে চর্চা শুরু হয়েছে। ওয়াশিংটন ডিসি রিপাবলিকানদের একাংশের হামলার সাক্ষী থাকল। নিরাপত্তারক্ষীদের সঙ্গে কার্যত ধাক্কাধাক্কি মারামারি হল। শেষপর্যন্ত পুলিশের গুলিতে প্রাণ হারালেন এক সাধারণ মানুষ। ওয়াশিংটন ডিসির সামনে রক্তপাত।

পুলিশ ও নিরাপত্তা কর্মীদের মারে বহু মানুষ জখম হয়েছেন। ডোনাল্ড ট্রাম্প এখনও মার্কিন প্রেসিডেন্ট ভোটে হারতে নারাজ। জো বাইডেন কয়েক ঘন্টা পরে আমেরিকার প্রেসিডেন্ট হিসেবে ঘোষিত হতে পারেন। শেষ মুহূর্তে সেটি বানচাল করতে এই হামলা বলে মনে করা হচ্ছে। সম্পূর্ণ ঘটনার জন্য ডোনাল্ড ট্রাম্পকে দায়ী করছে একপক্ষ। তার উস্কানিতে আমেরিকার ইতিহাসে এই ন্যক্কারজনক ঘটনা ঘটল মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল। ক্যাপিটাল বিল্ডিংয়ের সামনে বিশৃঙ্খলা চূড়ান্ত পর্যায়ে গেল বুধবার।

রিপাবলিকানদের বহু সমর্থক নিরাপত্তাগণ্ডি ভেঙে পৌঁছে গেল সেই বাড়িতে। পাঁচিল বেয়ে উপরে ওঠার চেষ্টা করে তারা। সেই ছবি এই মুহূর্তে প্রকাশিত হয়ে গিয়েছে গোটা বিশ্বের কাছে। রিপাবলিকান নেতাদের একাংশ এই ঘটনায় রীতিমতো হতবাক। তারা দাবি করছেন, রিপাবলিকানরা এই কাজ করে দলের ক্ষতি করল। ডোনাল্ড ট্রাম্প এই ধরনের উস্কানিমূলক আজ করে আরও ক্ষতি করছেন। যদিও এই বিষয়ে ডোনাল্ড ট্রাম্পের কোনও মন্তব্য পাওয়া যায়নি এই খবর লেখা পর্যন্ত।

মার্কিন কংগ্রেসে যৌথ অধিবেশনের শংসাপত্র পাবেন জো বাইডেন। রিপাবলিকান ও ডেমোক্র্যাটরা মার্কিন কংগ্রেসে ডোনাল্ড ট্রাম্পের ভেটো সরাসরি নাকচ করে দিয়েছে। ফলে আর কোনওভাবেই জো বাইডেনকে ঠেকিয়ে রাখা যাবে না। একের পর এক ফল প্রকাশিত হয়েছে। দেখা গিয়েছে ডোনাল্ড ট্রাম্প হেরেছেন নির্বাচনে। যদিও এই কথা কোনওভাবেই এখনও স্বীকার করতে চাইছেন না ডোনাল্ড ট্রাম্প। তিনি চান মার্কিন প্রেসিডেন্টের মসনদে আবার তাকে মনোনীত করা হোক। ভোটে প্রহসন করা হয়েছে। এই দাবি তিনি এখনও করছেন।

যদিও সুপ্রিম কোর্ট এই বিষয় নিয়ে আর খুব একটা বেশি সময় নষ্ট করতে রাজি নয়। রিপাবলিকান নেতারাও এই মুহূর্তে আর সমর্থন করছেন না এই বিষয়কে। মার্কিন প্রেসিডেন্ট হতে গেলে ২৭০ টি ইলেক্টোরাল ভোট প্রয়োজন হয়। জো বাইডেন ৩০৬ টি ভোট পেয়েছেন। ডোনাল্ড ট্রাম্প ২৩২ টি ভোট পেয়েছেন। অর্থাৎ অনেকটাই পিছিয়ে ডোনাল্ড ট্রাম্প। দেখা গিয়েছে ৫৩ লক্ষের বেশি পপুলার ভোট পেয়েছেন জো বাইডেন। অর্থাৎ ডোনাল্ড ট্রাম্পকে এবার হোয়াইট হাউস ছাড়তেই হবে। আর কোনওভাবেই বাধা দিয়ে তিনি ক্ষমতা দখল করে রাখতে পারবেন না।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।