খেজুরিতে উদ্ধার হল বিজেপি কর্মীর রক্তাক্ত মৃতদেহ

ফোর্থ পিলার

পূর্ব মেদিনীপুরের খেজুরিতে এক বিজেপি কর্মীর রক্তাক্ত মৃতদেহ উদ্ধার হল। বৃহস্পতিবার সকালে রেললাইনের ধারে একটি জমি থেকে তাঁর মৃতদেহ উদ্ধার হয়। গতকাল রাত থেকে নিখোঁজ ছিল সে। তৃণমূল কংগ্রেস এই খুন করেছে। অভিযোগ তুলেছে বিজেপি। মৃত ওই যুবকের নাম শম্ভু বারুই (২৫)। ভূপতিনগর গড়বাড়ি ২ গ্রাম পঞ্চায়েতের বংশীধর এলাকায় তার বাড়ি।

ঘটনায় এলাকায় যথেষ্ট উত্তেজনা ছড়ায়। পুলিশ মৃতদেহ উদ্ধারে গিয়ে বাধা পেয়েছিল। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, শম্ভু বারুই এলাকায় সক্রিয় বিজেপি কর্মী হিসেবে পরিচিত। পরিবার সূত্রে খবর, এলাকায় গতকাল পুজো ছিল। রাত তিনটে নাগাদ শম্ভুর মোবাইলে একটি ফোন আসে। তাকে ডাকা হয়েছিল বাইরে। ফোন পেয়ে শম্ভু বাড়ি ছেড়ে বের হয়। তারপর থেকে আর খোঁজ পাওয়া যায়নি। পরিবারের সদস্যরা তার মোবাইলে অনেকবার ফোন করে।

রাতে তাকে খুঁজতে গিয়েছিল বাড়ির লোকজন ও পরিচিতরা। কিন্তু তার সন্ধান মেলেনি। আজ বৃহস্পতিবার সকালে তাঁর মৃতদেহ উদ্ধার হয়। রেললাইনের ধারের জমিতে রক্তাক্ত মৃতদেহ পড়ে থাকতে দেখতে পাওয়া যায়। পরিবারের লোকজনকে খবর দেওয়া হয়। খেজুরি থানাতেও খবর গিয়েছিল। স্থানীয় লোকজন ভিড় করে ওই এলাকাতে। পুলিশ মৃতদেহ উদ্ধার করতে আসে। বাধার মুখে পড়ে স্থানীয়দের।

বিজেপির তরফ থেকে অভিযোগ শম্ভু এলাকায় সক্রিয় কর্মী। তৃণমূল বিজেপির উত্থান পছন্দ করছে না। তাই শম্ভুকে খুন করা হল। এই নিয়ে যথেষ্ট রাজনৈতিক উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। তৃণমূলের বক্তব্য, দলীয় কোন্দলের কারণে ওই যুবক খুন হয়েছে। এলাকা বরাবর শান্ত এখানে কোনও রাজনৈতিক হিংসা নেই। তৃণমূল কংগ্রেসের উপর মিথ্যা অভিযোগ আনা হচ্ছে। স্থানীয়দের বুঝিয়ে শেষপর্যন্ত মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। ভোট ঘিরে রাজ্যে হিংসা চলছে। গত সপ্তাহে রাজ্যের বিভিন্ন অংশে রাজনৈতিক হত্যা’ দেখা গিয়েছে। ভোটের আগে বিজেপি কর্মীদের মৃতদেহ উদ্ধার হচ্ছে। কেন এত হিংসা? এই প্রশ্ন উঠছে ওয়াকিবহাল মহলে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।