চড়চড়িয়ে বাড়ছে পারদ, কাল থেকে বাড়বে আরও তাপমাত্রা

ফোর্থ পিলার

রাজ্যে ভোটের উত্তাপ ক্রমশ বাড়ছে। পাশাপাশি গ্রীষ্মকাল চোখ নাচাচ্ছে ঘাম ঝরানো গরমের মধ্যে দিয়ে। আলিপুর আবহাওয়া দফতর জানাচ্ছে, বৃষ্টির দেখা নেই। অন্যদিকে তাপমাত্রার পারদ ক্রমশ ঊর্ধ্বমুখী হবে। আজ মঙ্গলবার দিনের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা থাকবে ৩৭ ডিগ্রির উপরে। আগামী কাল থেকে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা আরআও বাড়বে।

গতকাল কলকাতায় দিনের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৬.৫ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড। স্বাভাবিকের থেকে ২ ডিগ্রি বেশি। সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ২৫.৮ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড। স্বাভাবিকের থেকে দুই ডিগ্রি বেশি। বাতাসের আপেক্ষিক আদ্রতার সর্বোচ্চ পরিমাণ ৯০ শতাংশ, সর্বনিম্ন ৩৮ শতাংশ। আগামী কাল থেকে দক্ষিণবঙ্গে বৃষ্টির গরমের পরিমাণ আরও বাড়বে। কলকাতার তাপমাত্রা ৩৮ ডিগ্রির বেশি উঠে যাবে বলে জানানো হচ্ছে। ইতিমধ্যেই

পশ্চিমাঞ্চলের জেলাগুলিতেও তাপমাত্রা চড়চড়িয়ে বেড়েছে। সর্বোচ্চ তাপমাত্রা বাঁকুড়া পুরুলিয়া পশ্চিম মেদিনীপুর প্রভৃতি জেলায় তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেডের কাছাকাছি রয়েছে। বৈশাখ আসার আগেই তীব্র তাপদাহ শুরু হয়ে গিয়েছে। বৃষ্টি কবে হবে? সেই প্রশ্ন রয়েছে। গতকাল মুর্শিদাবাদের বেশ কয়েক জায়গায় শিলাবৃষ্টি হয়। সন্ধ্যার পর থেকে হালকা ঠান্ডা হাওয়া বইতে শুরু করেছিল। কিন্তু দক্ষিণবঙ্গের আর কোথাও বৃষ্টি হয়নি।

অপরদিকে উত্তরবঙ্গে বৃষ্টির পরিবেশ তৈরি হয়েছে। দার্জিলিং জলপাইগুড়ি কার্শিয়াং কালিম্পং শহর — একাধিক জায়গায় আগামী সাত দিনের মধ্যে বৃষ্টি হতে পারে। পরিস্থিতি এই মুহূর্তে যথেষ্ট অস্বস্তির দক্ষিণবঙ্গে। সকাল হওয়ার পরেই রোদের তেজ বাড়ছে। বেলা দশটার মধ্যেই রীতিমতো অস্বস্তি তুঙ্গে উঠে যাচ্ছে। সাধারণ মানুষের বাইরে বেরোনো মানুষদের কার্যত এক অসহায় অবস্থা। এবারের গ্রীষ্মকাল অত্যন্ত উষ্ণতার মধ্যে দিয়ে যাবে। একথা জানানো হয়েছে হাওড়া থেকে অফিসের থেকে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।