জাঁকিয়ে শীতের আশা নেই, আরও বাড়ল তাপমাত্রা

ফোর্থ পিলার

জাঁকিয়ে শীত পড়ার সম্ভাবনা সম্ভবত আর নেই। এই কথা এখন মানতে শুরু করেছেন আবহবিদেরা। পৌষমাসের শেষ লগ্নে পৌঁছে গিয়েছে সময়। আর দিন কয়েক পরেই সংক্রান্তি। নিয়ম মেনে এই সময় জাঁকিয়ে শীত পড়ার সম্ভাবনা থাকে। কিন্তু এবার সম্পূর্ণ উলটপুরাণ। কলকাতা সহ সহ সমগ্র রাজ্যেই তাপমাত্রার পারদ ঊর্ধ্বমুখী।

আবহাওয়া দফতর জানাচ্ছে, নতুন করে আর জাঁকিয়ে শীত পড়ার সম্ভাবনা প্রায় নেই। আবহাওয়া দফতর এই নিয়ে কোনও আশার বাণী শোনাতে পারছে না। রবিবারও তাপমাত্রার পারদ ঊর্ধ্বমুখী। এদিন সর্বনিম্ন তাপমাত্রা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৯.৬ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড। অর্থাৎ প্রতিদিন তাপমাত্রা বাড়ছে। গতকাল শনিবার কলকাতার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১৯.১ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড। দমদমে ১৮.৫ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড। ব্যারাকপুরে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১৫.৮ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড।

পরিস্থিতি আর সেই অর্থে শীতের অনুকূল নয়। বাংলা বিহার ওড়িশার উপর একটি বিপরীত ঘূর্ণাবর্ত রয়েছে। তার জেরে উচ্চচাপ বলয় তৈরি হয়ে রয়েছে। সেই কারণে পৌষ মাসে তাপমাত্রা লাফিয়ে নামার বদলে ক্রমশ বাড়ছে। বিপরীত ঘূর্ণাবর্তের কারণে জলীয়বাষ্প বাতাসে বেড়ে যাচ্ছে। উল্টোদিক থেকে উত্তুরে বাতাস বাধা পেয়ে আর এই রাজ্যে ঢুকতে পারছে না। মকর সংক্রান্তি সময় মৃদু ঠান্ডা অনুভব হতে পারে। তবে সেক্ষেত্রে কোনও নতুন পরিস্থিতি তৈরি হবে না। বাংলা থেকে শীতের আসা কার্যত হারিয়ে যেতে বসেছে এই মরসুমে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।