জয় বাংলা বললে বাংলাদেশি, সোনার বাংলা বললে দেশপ্রেমিক, এবার পালটা অভিষেক

ফোর্থ পিলার

বহিরাগত প্রসঙ্গেই বিজেপিকে ক্রমাগত আক্রমণ করেছেন তৃণমূল সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। উত্তরবঙ্গে নাগরাকাটার সভামঞ্চ থেকেও একই সুর শোনা গেল। তবে ঝাঁঝাঁলো ব্যক্তিগত আক্রমণের পথ থেকে সরে এসেছেন অভিষেক। বরং অনেক বেশি যুক্তিসংগত আক্রমণ দেখা গেল অভিষেকের গলায়।

‘জয় বাংলা’ বললে কেন বাংলাদেশি হতে হবে? সেই প্রশ্ন তুলেছেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। মানুষের মনে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রয়েছেন। ‘বাংলার নেত্রী’, ‘বাংলার মেয়ে’ মমতাকে আরও একবার জেতানোর জন্য আবেদন করেছেন অভিষেক। আজ শনিবার তৃণমূল কংগ্রেস তাদের ভোটের স্লোগান প্রকাশ করেছে। ‘বাংলা নিজের মেয়েকেই চায়’ এই স্লোগান বলা হয়েছে।
অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ও নাগরাকাটার মঞ্চ থেকে বাংলার কন্যা হিসেবেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে আরও একবার পরিচয় করান।

সাধারণ মানুষের ডাকে বরাবর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় গিয়েছেন রাজ্যের বিভিন্ন অংশে। এই কথা অভিষেকের গলায় উঠে এসেছে। শুধু তাই নয়, রাজ্যের উন্নয়নে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার বরাবর এগিয়ে। এই কথাও পরিষ্কার জানিয়েছেন অভিষেক। বিজেপি নেতারা বহিরাগত। আরও একবার এই সুর তুলেছেন অভিষেক। বিজেপি প্রচার চালাচ্ছে। একইভাবে এবার তাদের কথাতেই অভিষেক প্রশ্ন ছুঁড়ে দিলেন অভিষেক।

অভিষেক বলেন, “বিজেপি বলছে সোনার বাংলা বানাবে। আমি জয় বাংলা বললে বাংলাদেশি। আর তুমি সোনার বাংলা বললে দেশপ্রেমিক।” সোনার বাংলা কোথাকার স্লোগান? এই বিষয় নিয়ে যথেষ্ট রাজনৈতিক পার্থক্য রয়েছে। ‘আমার সোনার বাংলা, আমি তোমায় ভালোবাসি’ রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের লেখা এই গান এই মুহূর্তে বাংলাদেশের জাতীয় সঙ্গীত। অর্থাৎ বিজেপিও বাংলাদেশের জাতীয় সঙ্গীতের কথা এই মুহূর্তে স্লোগানে ব্যবহার করছে। অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় সেই ইঙ্গিত করেছেন।

২০১৬ সালে বিধানসভা নির্বাচনে নাগরাকাটা থেকে তৃণমূলের টিকিটে জিতেছিলেন শুকড়া মুন্ডা। তিনি পরে বিজেপিতে যোগদান করেন। এলাকার তৃণমূল কংগ্রেস কর্মী নেতৃত্ব এই বিধায়ককে বিশ্বাসঘাতক বলে বরাবর আক্রমণ করছেন। সেই প্রসঙ্গ তুলে এনেছেন অভিষেক। তার কথায়, “এখানকার বিধায়ক আপনাদের ভালোবাসা বিক্রি করে দিয়েছে বিজেপির কাছে। এমন জবাব দেবেন, আগামী পাঁচ বছর বাড়ি থেকে বের হওয়ার আগে ভাববে।”

তৃণমূল কংগ্রেসের পক্ষ থেকে এই কেন্দ্রে এলাকার ভূমিপুত্রকেই প্রার্থী করা হবে। একথা তিনি দাবি করেছেন। জলপাইগুড়ি জেলায় সাতটি বিধানসভা কেন্দ্র রয়েছে। প্রত্যেকটিতেই এবার তৃণমূল কংগ্রেসকে জেতার জন্য আবেদন করেছেন অভিষেক। ওয়াকিবহাল মহল বলছে লোকসভা নির্বাচনের নিরিখে দেখা যাচ্ছে তৃণমূল কংগ্রেস যথেষ্ট চাপে রয়েছে। বিজেপি প্রত্যেকটি কেন্দ্রে তৃণমূলের সঙ্গে সেয়ানে সেয়ানে ভোটব্যাঙ্কে টক্কর দিচ্ছে। অভিষেক আরও দাবি করেছেন এবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আড়াইশোর বেশি আসন নিয়ে সরকার গঠন করবে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।