ট্রাম্পের সভা থেকে করোনা আক্রান্ত ৩০ হাজার, মৃত ৭০০

ফোর্থ পিলার

ডোনাল্ড ট্রাম্পের জনসভা থেকে ৩০ হাজার মানুষ করোনা ভাইরাস আক্রান্ত হয়েছেন। এই তথ্য উঠে এসেছে একটি সমীক্ষায়। তিন মাসের একটি সমীক্ষা চালিয়েছিল স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়। সেই সমীক্ষার ফলাফল প্রকাশিত হয়েছে। রিপোর্ট ঘিরে রাজনৈতিক জল্পনা শুরু হয়েছে। আগামী কাল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন। তার আগে করোনা ভাইরাস প্রসঙ্গে বিতর্ক ভোটের উত্তেজনা বাড়িয়ে দিল অনেকটাই।

করোনা ভাইরাস আবহাওয়ায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন। তীব্র লড়াই এবার জো বাইডেন ও বর্তমান প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প- এর মধ্যে। নিজে প্রচারে ঝড় তুলতে কোন কসুর করেননি ডোনাল্ড ট্রাম্প। জনসভায় তীব্র আক্রমণ করেছেন বিপক্ষকে। হাজার হাজার মানুষ সমবেত হয়েছিলেন জনসভায়। সেখান থেকেই করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার ক্ষেত্র আরোও বেশি করে প্রস্তুত হয়েছে। এই কথা সমীক্ষায় উঠে এসেছে।

স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় সমীক্ষা চালিয়েছিল। ২০ জুন থেকে ২২ সেপ্টেম্বর চলে এই সমীক্ষা। ১৮ টি সভা প্রকাশ্যে হয়েছে। তিনটি বদ্ধ জায়গায় সভা হয়েছে। প্রত্যেকটি সভাতেই অসংখ্য মানুষ ভিড় করেছিলেন। সেখান থেকে করোনা ভাইরাস ছড়িয়েছে। একথা জানা যাচ্ছে। ডোনাল্ড ট্রাম্পের এই তিন মাসের সভায় ৩০ হাজার করোনা আক্রান্ত হয়েছে। ৭০০ জন মারা গিয়েছেন। সমীক্ষায় এই তথ্য উঠে এসেছে। গত দেড় মাসেও ডোনাল্ড ট্রাম্প শেষ দফায় আরও সভা করেছেন। যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন প্রদেশে গিয়েছেন সভা করতে। কাজেই আক্রান্তের সংখ্যা আরও অনেকটা বাড়বে। একথা মনে করা হচ্ছে।

সমীক্ষায় বলা হয়েছে, সামাজিক দূরত্ববিধি কোনও কিছুই মানা হয়নি সভাগুলিতে। সভায় অংশ নেওয়া মানুষদের বেশিরভাগই মাস্ক ব্যবহার করেননি। কোনও নিরাপত্তা ব্যবস্থাও ছিল না করোনা থেকে। শুধু তাই নয়, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এই করোনা পরিস্থিতি থোড়াই কেয়ার করেছেন। সেপ্টেম্বর মাসে তিনি নিজে করোনা আক্রান্ত হয়েছিলেন। সুস্থ হওয়ার পরে ফের রাজনৈতিক সভায় অংশ নিয়েছেন। সেইসময় তার মুখে কোনও মাস্ক ছিল না। প্রেসিডেন্ট ঠিক কি বার্তা দিতে চাইছেন? তাই নিয়ে যথেষ্ট দুর্ভাবনায় ওয়াকিবহাল মহল।

এই মুহূর্তে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ফের লাফিয়ে বাড়ছে। গত কয়েকদিনে দৈনিক ৮০ হাজার গড়ে করোনা আক্রান্তের সন্ধান পাওয়া গিয়েছে। শীতকাল শুরু হচ্ছে মার্কিন মুলুকে। পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার নেবে। ওয়াকিবহাল মহল আগেই জানিয়েছিল। গোটা বিশ্বে আক্রান্ত মৃত্যুর তালিকায় প্রথম স্থানে রয়েছে আমেরিকা। মার্কিন প্রেসিডেন্টের সভা থেকে করোনা ছড়াচ্ছে। এই তথ্য প্রকাশিত হওয়ায় বিতর্ক তুঙ্গে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।