তাপমাত্রা একলাফে নামল ৪ ডিগ্রি, কলকাতায় শীতের আমেজ

ফোর্থ পিলার

বাতাসে পুরোপুরি শীতের আমেজ। এক লহমায় বদলে গিয়েছে আবহাওয়া। কনকনে শীত হাড় কাঁপাতে শুরু করে দিয়েছে কলকাতা ও শহরতলির। আলিপুর আবহাওয়া দফতর জানাচ্ছে, একলাফে চার ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড নেমেছে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা। আগামী ৪৮ ঘণ্টায় তাপমাত্রার পারদ আরও নামার সম্ভাবনা থাকছে। অর্থাৎ কলকাতা সহ দক্ষিণবঙ্গ শীতের কাঁপন অনুভব করতে শুরু করল।

আলিপুর আবহাওয়া দফতর আগেই জানিয়েছিল, সোমবার থেকে তাপমাত্রা নামবে। রবিবার থেকেই পরিস্থিতি শীতের অনুকূল হচ্ছিল। আকাশের মেঘের আস্তরণ সরে গিয়েছিল রবিবার। গতকাল সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১৮.৫ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড ছিল। স্বাভাবিকের থেকে এক ডিগ্রি বেশি। আবহাওয়া দফতর জানিয়েছিল, সোমবার থেকে শীত যথেষ্ট জানান দেবে তার উপস্থিতি। ভোররাত থেকেই ঠাণ্ডা মালুম হতে শুরু করে। সোমবার সকালে তাপমাত্রা নেমে যায় অনেকটাই।

হাওয়া অফিস জানাচ্ছে, সোমবার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রয়েছে ১৫ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড। স্বাভাবিকের থেকে চার ডিগ্রি কম। দক্ষিণবঙ্গের অন্যান্য জেলাগুলিতে তাপমাত্রার পারদ আরও দুই থেকে তিন ডিগ্রি নামবে স্বাভাবিকভাবেই। অর্থাৎ জেলায় শীতের আমেজ আরেকটু বেশি অনুভব হচ্ছে। কলকাতা ও শহরতলিতে তাপমাত্রার পতন আগামী দুদিন অনুভূত হবে। সোয়েটার পরা উচিত কি উচিত নয়! এই নিয়ে এখন চরম ধন্দে বাঙালি।

জেলাগুলিতে শীতের পোশাক ইতিমধ্যেই বেরিয়ে গিয়েছে। আবহাওয়া দফতর জানাচ্ছে, শুক্রবার পর্যন্ত এই শীতের আমেজ অনুভব করা যাবে। এরপর তাপমাত্রা বাড়বে আরও খানিকটা। একটি নিম্নচাপ অক্ষরেখা অবস্থান হচ্ছে বঙ্গোপসাগরে। তার জেরে শীত রাস্তায় বাধা পড়বে। অন্যদিকে মৌসম ভবন জানাচ্ছে পার্বত্য অঞ্চলে পশ্চিমী ঝঞ্জা হানা দিচ্ছে। এর জেরে দিন কয়েকের মধ্যেই জম্মু-কাশ্মীর, লাদাখ, হিমাচলে বরফ পড়তে শুরু করবে।

তেমন হলে উত্তর ভারতজুড়েই শুরু হবে শৈত্যপ্রবাহ। পূর্ব ভারতের কনকনে ঠাণ্ডা বাতাস বইতে আরম্ভ করবে আরও বেশি করে। ইতিমধ্যেই উত্তরবঙ্গের জেলাগুলিতে তাপমাত্রা নামছে। হিমালয় পার্বত্য অঞ্চলে অল্পবিস্তর বরফ পড়তে শুরু করেছে। নভেম্বরের শেষবেলায় শীত কলকাতা সহ রাজ্যে জাঁকিয়ে বসবে। এই আশা এখন করাই যায়।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।