দুর্ধর্ষ ওয়ার্নার ও ফিঞ্চ, শোচনীর পরাজয়ের স্বাদ পেলেন বিরাটরা

ফোর্থ পিলার

বহু বছর পর মুখচুন করে মাঠ ছাড়লেন বিরাট কোহলি ও টিম ইন্ডিয়া। ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে দাপট দেখালেন অস্ট্রেলিয়া। ব্যাটে-বলে অজিরা রীতিমতো ভারতকে দুরমুশ করল অজিরা। ডেভিড ওয়ার্নার এবং আয়রন ফিঞ্চের দুর্দান্ত ব্যাটিং ভারতকে আজ বহু বছর পর শোচনীয় পরাজয়ের স্বাদ মনে করিয়ে দিল।

২৫৫ রানে ইনিংস শেষ করে টিম ইন্ডিয়া। শিখর ধাওয়ান ও কে এল রাহুল ফিরে যেতেই ধস নামে ভারতীয় ব্যাটিং লাইনআপে। ৭৪ রান করে আউট হন শিখর ধাওয়ান। কে এল রাহুল করেন ৪৭ রান। বিরাট কোহলি মাত্র ১৬ রানে আউট হন। শেষপর্যন্ত টেলএলেন্ডাররা কিছুটা হাল ধরে ব্যাটিংয়ে। শেষবেলায় তাদের সাহায্যে ৫০ ওভারে ২৫৫ রান তুলতে সমর্থ হয় ভারত।

দ্বিতীয় ভাগে ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে বল করা অত্যন্ত কষ্টকর। তাও বল হাতে চেষ্টা করতে আরম্ভ করেছিলেন ভারতীয় বোলাররা। কিন্তু আজ দুর্দান্ত ফর্মে ছিলেন ডেভিড ওয়ার্নার ও আয়রন ফিঞ্চ। উইকেট না হারিয়ে মাত্র ৩৭.৪ ওভারে জয়ের জন্য প্রয়োজনীয় রান তুলে নেয়। দুজনেই অপরাজিত থাকেন। খেলা শেষ করে মাঠ ছাড়েন। এত অসহায় সাম্প্রতিক অতীতে দেখা যায়নি টিম ইন্ডিয়াকে। ১১২ বলে ১২৮ রান করেন ডেভিড ওয়ার্নার। আয়রন ফিঞ্চ ১১০ রানে অপরাজিত থাকেন। দুজনের চোখধাঁধানো ব্যাটিং মাঠে দর্শকরা শুধু উপভোগ করেছেন।

বিরাট কোহলি অত্যন্ত হতাশ। তার চেহারায় চোখে-মুখে সেই ছাপ ফুটে উঠেছে পুরো সময়টাতেই। বিরাট কোহলিদের মাঠে কার্যত ভেঙে পড়তে দেখা গেল আজ। পাশাপাশি অস্ট্রেলিয়ার ওপেনাররা নিজেদের জন্য নতুন রেকর্ড তৈরি করে রাখলেন। এই প্রথম ওপেনিং ব্যাটসম্যানরা এত রান করেছেন। ২০০৩ সালের বিশ্বকাপে ভারত- অস্ট্রেলিয়া ফাইনাল ম্যাচের কথা মনে করেছেন অনেকে। এইরকম একটি বিধ্বংসী ব্যাটিং করেছিলেন অস্ট্রেলিয়া ব্যাটসম্যানরা। সে সময় ভারতের অধিনায়ক ছিলেন সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।