নিসর্গ পরিণত হয়েছে নিম্নচাপে, প্রবল বৃষ্টি বাণিজ্যনগরী মুম্বইতে

ফোর্থ পিলার

একটানা বৃষ্টি হচ্ছে বাণিজ্যনগরী মুম্বইতে। গতকাল রাত থেকেই শুরু হয়েছে এই বৃষ্টি। অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড় নিসর্গ শেষপর্যন্ত তার শক্তি হারায়। বাণিজ্যনগরী ও তার আশেপাশে আসার আগেই নিসর্গ গভীর নিম্নচাপে পরিণত হয়েছিল। সেই কারণে আর ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাব মুম্বইয়ের উপর পড়েনি। বড় ধরনের ক্ষয়ক্ষতি থেকে আপাতত মুক্ত হয়েছে মুম্বই।

বৃষ্টির কারণে বহু জায়গায় জল দাঁড়িয়ে শহর অবরুদ্ধ হওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে। মহারাষ্ট্রের রায়গড় জেলার আলিবাগ অঞ্চলে এই অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড় আঘাত হেনেছিল। তারপরেই সে শক্তি হারায়। সে সময় তার গতিবেগ ছিল সর্বোচ্চ ঘন্টায় ১২০ কিলোমিটার। এই খবর লেখা পর্যন্ত মহারাষ্ট্রতে মোট চারজন মারা যাওয়ার খবর এসেছে। আলিবাগ অঞ্চলে বিদ্যুতের খুঁটি উপড়ে পড়েছে। বাড়ির চাল উপড়ে চলে গিয়েছে অন্য জায়গায়। শিকড় সমেত গাছ উপড়ে পড়েছে বহু জায়গাতে।

প্রাথমিকভাবে এখানে ঝড়ের ধাক্কা ছিল যথেষ্ট। এরপরই নিসর্গ তার শক্তি হারাতে থাকে। ধীরে ধীরে সে গভীর নিম্নচাপে পরিণত হয়। রত্নগিরি, পুণে, মুম্বই, পালাঘাট প্রভৃতি প্রদেশ যাওয়ার আগেই তার গতিবেগ অনেকটা কমে গিয়েছিল। তবে ভারী বৃষ্টি চলছে শহরজুড়ে। আরব সাগরের তীরে মুম্বই প্রহর গুনছিল নিসর্গের আঘাত হানার। মেরিন ড্রাইভ অঞ্চল ফাঁকা করে দেওয়া হয়েছিল গত পরশু থেকেই। চরম সর্তকতা মুম্বই জুড়েই জারি করা হয়েছিল

কিন্তু কোন বড় ধরনের ক্ষয়ক্ষতি হয়নি। মুম্বই বিমানবন্দর গতকাল সন্ধ্যা সাড়ে সাতটা পর্যন্ত বন্ধ করে রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল। রাতে বিমানবন্দর খুলে দেওয়া হয়। তবে জানা গিয়েছে, রানওয়েতে নামার সময় একটি বিমান পিছলে গিয়েছিল বেশ কিছুটা। তবে কোনও অঘটন ঘটেনি। বৃষ্টি হওয়ার ফলে দুশ্চিন্তা বাড়ছে। পরিস্থিতি কখন নিয়ন্ত্রণে আসে তার জন্য অপেক্ষা করছে ওয়াকিবহাল মহল ও প্রশাসন।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।