পৃথিবীর তাপমাত্রা আর এক- দুই ডিগ্রি বাড়লেই গলে যাবে বরফ, উধাও হবে আমাজন রেন ফরেস্ট

ফোর্থ পিলার

গ্লোবাল টিপিং পয়েন্ট’ – এর একদম চরম সীমায় দাঁড়িয়ে রয়েছে পৃথিবী। গত ২০ বছর আগেই এই হুঁশিয়ারি দিয়েছিল বিজ্ঞানীরা। কিন্তু সে সময় খুব একটা বোঝা সম্ভব হয়নি। এখন পরিস্থিতি অত্যন্ত জটিল আকার নিয়েছে। সম্প্রতি নেচার পত্রিকায় ‘কমেন্টারি’ নামক একটি কলমে এই সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে।

বিজ্ঞানী ও গবেষকরা আশঙ্কার কথা শুনিয়েছেন। এক্ষেত্রে বলা হয়েছে, এই মুহূর্তে উষ্ণায়নের চরম সীমায় রয়েছে বিশ্ব। আগে বলা হত বিশ্ব উষ্ণায়ণের মাত্রা পাঁচ ডিগ্রি বেড়ে গেলেই ভয়াবহ পরিস্থিতির সামনে আসবে এই গ্রহ। কিন্তু এখন আর পাঁচ ডিগ্রি নয়। এই জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে এক বা দুই ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড পৃথিবীর তাপমাত্রা বাড়লেই অন্তিম সময়ের দিকে পৌঁছে যাবে পৃথিবী।

কি কি ঘটতে শুরু করবে, কি হতে পারে? এক্ষেত্রে তার ব্যাখ্যা করতে গিয়ে যা শুনিয়েছেন বিজ্ঞানী ও গবেষকরা, তাতে রীতিমতো ভয় পাওয়ার অবস্থা। গবেষকরা জানিয়েছেন, একবার তাপমাত্রা বেড়ে গেলে তখন আর ফেরার অবস্থা থাকবে না। আমাজন বৃষ্টি অরণ্য উধাও হয়ে যাবে। পাশাপাশি দুই মেরু প্রদেশের বরফ গলতে শুরু করবে আরও দ্রুত। যার ফল আরও ভয়াবহ। চিরতুষাররাজ্য যদি জলময় হতে শুরু করে, তার প্রভাব একে একে মহাদেশগুলোর উপর এসে পড়বে।

সমুদ্রের জল ভাসিয়ে দেবে মহাদেশগুলিকে। তাছাড়াও কিছু কিছু অংশকে এমন উষ্ণ পর্যায়ে নিয়ে গিয়ে তুলবে, যেখানে আর কোনও প্রাণের সন্ধান পাওয়া যাবে না। বিজ্ঞানীরা এই এলাকাগুলিকে ‘হটহাউস’ বলে আখ্যা দিয়েছেন। এই মুহূর্তে ‘গ্রিনহাউজ গ্যাস’ বন্ধ করাই একমাত্র উপায় বলে মনে করছেন বিজ্ঞানী ও গবেষকরা। যত তাড়াতাড়ি বিশ্বকে গ্রিনহাউস গ্যাসের কবল থেকে মুক্ত করা যায়,তত পৃথিবীর মঙ্গল।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।