প্রশাসন অনুমনি নেই, শ্রাবন্তী ও পায়েলের সমর্থনে রোড শো হল না মিঠুনের

ফোর্থ পিলার

চতুর্থ দফায় ভোট গ্রহণের আগে আজ বৃহস্পতিবার শেষ প্রচার। কলকাতার দুই কেন্দ্র বেহালা পূর্ব ও পশ্চিমের আগামী শনিবার নির্বাচন। দুই কেন্দ্রের প্রচারে আজ বিজেপির প্রার্থীদের হয়ে রোড শো করার কথা ছিল মিঠুন চক্রবর্তীর। এদিন সকালে সেই রোড শো বাতিল হয়ে যায়। পুলিশ প্রশাসন সেই রোড শোর অনুমতি দেয়নি। সেই কারণে বিজেপির পক্ষ থেকে রোড শো করা গেল না।

এই নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বেহালা পশ্চিমের প্রার্থী শ্রাবন্তী চট্টোপাধ্যায়। তৃণমূল কংগ্রেস ভয় পেয়েছে। তাই প্রশাসন অনুমতি দিল না। এই কথা বলা হচ্ছে। সকাল থেকেই বিজেপির সাজ সাজ রব। কিন্তু মিঠুনকে দেখতে পাওয়া যাচ্ছে না। জানা গিয়েছে, প্রশাসন অনুমতি দেয়নি। বুধবার বিজেপির পক্ষ থেকে পুলিশ প্রশাসনের কাছে সুবিধা এপে এই রোড শোর অনুমতি চাওয়া হয়েছিল। বৃহস্পতিবার সকালে কোনও অনুমতি মিলল না।

এই দুই কেন্দ্র যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ। বিজেপির পক্ষ থেকে দুই কেন্দ্রে টলিউডের দুই নায়িকাকে প্রার্থী করা হয়েছে। দুই প্রার্থীর সমর্থনে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী অমিত শাহ রোড শো করে গিয়েছেন চলতি সপ্তাহে। এবার মহাগুরু মিঠুন চক্রবর্তী প্রচার করতেন। তাই নিয়ে উৎসাহও ছিল। এদিন সকাল থেকেই বিজেপি কর্মী সমর্থকদের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দেয়। জানা যায় প্রশাসন অনুমতি দেয়নি। তাই মিঠুন আসছেন না। থানার সামনে বিজেপি কর্মী- সমর্থকরা বিক্ষোভও দেখায়। বাবুল সুপ্রিয়র প্রচারে টালিগঞ্জে রোড শো করবেন মিঠুন চক্রবর্তী। ১২ টায় র‍্যালি হওয়ার কথা ছিল। তবে প্রশাসনের সঙ্গে এই রোড শো নিয়েও টানাপোড়েন চলে। তারপর অনুমতি মেলে।

ভয় পেয়ে আটকে রাখা যাবে না। একথা দাবি করেছেন শ্রাবন্তী। তিনি নিজের রোড শো শুরু করেছেন। বলাবাহুল্য এই রোড শোর অনুমতি পুলিশ দেয়নি। সকাল থেকেই কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে উত্তেজনা ছিল মিঠুনকে দেখা ঘিরে। কিন্তু আখেরের সেটি আর হল না। মিঠুন চক্রবর্তী তৈরি ছিলেন বাড়িতেই। অনুমতি না মেলায় তিনি বেরোননি। আজ বিকেলে প্রচার শেষ দুই কেন্দ্রে। হাইভোল্টেজ না হলেও সেয়ানে সেয়ানে টক্কর হবে তৃণমূল বিজেপির মধ্যে। এই কথা বলছে রাজনৈতিক মহল।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।