বন্ধুদের সম্পর্কে এমন কথা বলতে নেই, ট্রাম্পকে ঠুকে বার্তা দিলেন জো বাইডেন

ফোর্থ পিলার

প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বক্তব্য সামনে রেখেই তাকে বিঁধলেন জো বাইডেন। ডেমোক্রাট প্রার্থী হিসেবে জনপ্রিয়তা ক্রমেই বাড়ছে জো বাইডেনের। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের অন্যতম প্রতিপক্ষ তিনি। ভারত দূষিত, এই দেশের বাতাসে নোংরা ভেসে বেড়ায়। এই কথা বলেছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প তারই প্রতুত্তর দিলেন জো বাইডেন। বললেন, “বন্ধুদের সম্পর্কে কিভাবে কথা বলতে হয়, তা জানেন না ট্রাম্প।”

শেষ মুহূর্তে প্রচারে ঝড় তুলছেন জো বাইডেন। মার্কিন প্রেসিডেন্ট একের পর এক বিরূপ মন্তব্য করে চলেছেন। সেইসব কথাকেই হাতিয়ার করছেন ডেমোক্র্যাটরা। কুড়ি লক্ষ ভারতীয় বাস করেন আমেরিকায়। গতবছর হাউদি মোদি অনুষ্ঠানে ভারতীয়দের জনসমাগম দেখতে পাওয়া গিয়েছিল। মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ভারতীয়রা ডোনাল্ড ট্রাম্পকে সমর্থন করুক। এই আবেদন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি রেখেছিলেন। দেখা গিয়েছে, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ভারতীয় দেশ সম্পর্কে গত ছয় মাসে একাধিক বিরূপ মন্তব্য করেছেন। এই মুহূর্তে অনাবাসী ভারতীয়রা মার্কিন নীতিতে ক্রমশ কোণঠাসা হয়ে পড়েছেন।

আমেরিকান নাগরিকরা সে দেশে থাকা ভারতীয়দের উপর মাঝেমধ্যেই আক্রমণ চালাচ্ছে। আকারে-ইঙ্গিতে বিদ্বেষমূলক কথা ছড়ানো হচ্ছে তাদের প্রতি। এই পরিস্থিতিতে মার্কিন প্রেসিডেন্টের বক্তব্য আরও মারাত্মক আকার নিয়েছে। মার্কিন প্রেসিডেন্ট সম্প্রতি জলবায়ু সম্পর্কে বক্তব্য রেখেছেন। সেখানে জানিয়েছিলেন, ভারত চিন রাশিয়ার আবহাওয়া দূষিত। বাতাসে দূষণ ছড়ায় এই তিন দেশে। ভারতের সঙ্গে আমেরিকান বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কের কথা এই মুহূর্তে প্রত্যেকেই জানে। সেক্ষেত্রে কি করে আমেরিকা এত বড় বক্তব্য রাখতে পারে? তা নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে।

এই বক্তব্যকে হাতিয়ার করেছেন জো বাইডেন। ভারতীয়দের নিজেদের দিকে টানতে চাইছেন তিনি। ভারতকে ‘নোংরা’ বলার জন্য ট্রাম্পকে একহাত নিলেন ডেমোক্র্যাটিকের প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী। টুইটবার্তায় তিনি বলেন, “ভারতকে নোংরা বলেছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। এরকমভাবে বন্ধুদের বিষয়ে কেউ কথা বলে না। এরকমভাবে কেউ জলবায়ু পরিবর্তনেের মতো বিশ্বব্যাপী সমস্যার সমাধান করতে পারে না। কমলা হ্যারিস এবং আমি আমাদের সম্পর্কের মর্যাদা দিই এবং আমাদের বিদেশ নীতির কেন্দ্রে আবারও মর্যাদা ফিরিয়ে দিতে আনব।”

সম্প্রতি জানা গিয়েছে ৭০ শতাংশ আমেরিকায় থাকা ভারতীয় জো বাইডেনের পক্ষে মতামত দিচ্ছেন। ২০ শতাংশ রয়েছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের দিকে। শুধু তাই নয়, আমেরিকার জনসমর্থনের ক্ষেত্রেও জো বাইডেন এই মুহূর্তে অনেকটাই এগিয়ে রয়েছে। শেষ মুহূর্তের ফলাফল কোন দিকে যাবে? তা নিয়ে যথেষ্ট উদ্বিগ্নতা থাকবেই। ভারতীয়দের মন জয় করতে জো বাইডেন একের পর এক বার্তা দিচ্ছেন প্রচারে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।