বাংলাদেশের স্বাধীনতা আন্দোলনের জন্য জেল খেটেছেন মোদি

ফোর্থ পিলার

বাংলাদেশের স্বাধীনতা আন্দোলনের জন্য লড়াই করেছেন নরেন্দ্র মোদি। সত্যাগ্রহ করে জেলও গিয়েছেন তিনি। বাংলাদেশের মুজিব দিবসের অনুষ্ঠানে এই কথাই বললেন মোদি। বাংলাদেশে দুদিনের সভায় গিয়েছেন তিনি। দুই দেশের মৈত্রী সম্পর্কের আরও এক ধাপ উন্নত হল। এই কথাও বলা হচ্ছে রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে। ঢাকা-নয়াদিল্লির সম্পর্কে নতুন দিগন্তের সূচনা হল।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এদিন বিকেলে বাংলাদেশে বক্তব্য রাখেন। তিনি বলেন, “পরাধীন বাংলাদেশের স্বাধীনতার জন্য আমিও লড়াই করেছিলাম। মুক্তি যুদ্ধের জন্য সহযোগীদের সঙ্গে সত্যাগ্রহ করে জেলে গিয়েছিলাম আমরা। এই লড়াইয়ে কৃষক, জওয়ান, শিক্ষক ও চাকুরিজীবী সবাই একসঙ্গে এসে মুক্তিবাহিনী গঠন করে লড়াই করেছেন।” এদিন রাজধানী ঢাকার সভামঞ্চে ‘মুজিব চিরন্তন’ অনুষ্ঠানে যোগ দিয়েছেন নরেন্দ্র মোদি।

তিনি আরও বলেন, “এই সংগ্রামে ভারতীয় জওয়ানদের অনেক রক্ত ঝরেছে। মুক্তিযুদ্ধে শহিদ ভারতীয় জওয়ানদের আমি শ্রদ্ধা জানাই। সেসময় পাকিস্তানের সেনারা অকথ্য অত্যাচার চলিয়েছিল। এহেন পরিস্থিতিতে লড়াই চলিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু মুজিবর রহমান। আমাদের উন্নয়নের লক্ষ্যে একসঙ্গে অগ্রসর হতে হবে।”

এদিন পাক মদতপুষ্ট সন্ত্রাসবাদ নিয়েও সরব হয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। বাংলাদেশের মাটি থেকে বার্তা দিলেন নরেন্দ্র মোদি। তিনি বলেন, “আমরা দুই দেশ গণতন্ত্রের শক্তিতে বলীয়ান। আমাদের সন্ত্রাসবাদীদের রুখে দিতে হবে। একসঙ্গে পারস্পরিক সহযোগিতার মাধ্যমে উন্নয়নের পথে আমরা এগিয়ে যাব। আজকের দিন আমার কাছে স্মরণীয়।” করোনার টিকা বাংলাদেশের কাছেও যাচ্ছে। সেই বিষয়েও মোদি কথা বলেন।তার কথায়, “আমরা করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে বাংলাদেশকে সাহায্য করেছি। আমাদের ভ্যাকসিন বাংলাদেশের কাছে পৌঁছেছে, এতে আমি খুশি। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বিশ্বে দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ। “

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।