বাংলাদেশে নরেন্দ্র মোদি, অভ্যর্থনা জানালেন শেখ হাসিনা

ফোর্থ পিলার

প্রতিবেশী দেশ বাংলাদেশ পৌঁছলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। উচ্ছ্বাস ও উদ্দীপনা রয়েছে দুই দেশের সরকারি মহলে। সকাল দশটায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বিমানের চাকা বাংলাদেশের মাটি স্পর্শ করে। বাংলাদেশের প্রেসিডেন্ট শেখ হাসিনা নিজে উপস্থিত ছিলেন বিমানবন্দরে। সিঁড়ি দিয়ে নেমে আসেন প্রধানমন্ত্রী। উষ্ণ অভ্যর্থনা হয় দুই দেশের প্রধানের মধ্যে। ফুল দিয়ে বরণ করা হয়। গার্ড অফ অনার দেওয়া হয়। বিভিন্ন এলাকা সেজে উঠেছে বাংলাদেশের নরেন্দ্র মোদিকে অভ্যর্থনা জানানোর জন্য।

বিমানবন্দরেই জাতীয় সঙ্গীত চলে। দ্বিজেন্দ্রলাল রায়ের গান বাজানো হয়েছে। বাংলাদেশের জাতীয় দিবস অনুষ্ঠানে দুই দিনের সফরে গিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। বঙ্গবন্ধু মুজিবুর রহমানের বাড়িতেও যাবেন তিনি শ্রদ্ধা জানানোর জন্য। মতুয়া ঠাকুরের ভিটেতেও নরেন্দ্র মোদি আগামী কাল পৌঁছাবেন। রাজনৈতিক মহলে এটিও খুব গুরুত্বপূর্ণ। মতুয়া ভোটব্যাঙ্ক নিজের দিকে আনার জন্য এবার নরেন্দ্র মোদি বাংলাদেশে পৌঁছে গেলেন। এই কথা মনে করছেন রাজনৈতিক মহলের একাংশ। তার অন্যতম বড় কারণ আগামী কাল পশ্চিমবঙ্গে প্রথম দফার নির্বাচন শুরু হচ্ছে।

আজই প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশের জাতীয় স্মৃতিসৌধে মহান মুক্তিযুদ্ধে বীর শহিদদের শ্রদ্ধা জানাবেন। ধানমন্ডি-৩২-এ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতেও শ্রদ্ধা জানাবেন মোদি। এরপর বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর পরিদর্শন করবেন। আজ শুক্রবার বিকেলে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী অনুষ্ঠানে অংশ নেবেন নরেন্দ্র মোদি। তিনি বক্তব্য রাখবেন সেখানে।

বাংলাদেশের জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী। এছাড়াও বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী অনুষ্ঠান। সেই উপলক্ষে ভারত-সহ বিভিন্ন রাষ্ট্র ও সরকার-প্রধানদের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে বাংলাদেশের তরফে। চারটি দেশের সরকার ও রাষ্ট্রপ্রধানরা বাংলাদেশে সফর করেছেন। করোনার কারণে অনেক দেশের শীর্ষ কর্মকর্তারা উপস্থিত হচ্ছেন না। ভিডিও বার্তা তারা পাঠিয়েছেন।

গত ১৭ মার্চ থেকে ২৬ মার্চ অবধি ১০ দিনের অনুষ্ঠান রয়েছে। বিদেশি রাষ্ট্রনেতারা অংশ নিয়েছেন এই অনুষ্ঠানে। আজ ২৬ মার্চ শুক্রবার অনুষ্ঠানের শেষ দিন। আজ অংশ নিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। করোনা আবহে এই প্রথম নরেন্দ্র মোদি বিদেশ সফর করলেন। তিনি নিজেও টুইট মারফত বাংলাদেশ যাত্রার কথা বলেছেন। দুই দেশের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক বেশ কিছু বিষয় নিয়ে আলোচনা হবে। জানা যাচ্ছে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।