বিশ্বের ৭০ শতাংশ বাঘ এখন ভারতে, প্রকাশিত রিপোর্ট

ফোর্থ পিলার

ভারতে একসময় বাঘের সংখ্যা কমতে শুরু করেছিল। রিপোর্টে দুশ্চিন্তায় পড়েছিল কেন্দ্রীয় সরকার ও পরিবেশবিদরা। ২০২০ সালে ছবিটা অনেক বদল হয়েছে। গোটা পৃথিবীর ৭০ শতাংশ বাঘ এই মুহূর্তে ভারতবর্ষে রয়েছে। আজ ‘বিশ্ব বাঘ দিবস’। দেশের বিভিন্ন প্রান্তের কর্মীরা এই দিবসটি উদযাপন করেন। মঙ্গলবার কেন্দ্রীয় মন্ত্রী প্রকাশ জাভেদকর তথ্য প্রকাশ করেছেন। সেখানেই এই বক্তব্য জানা গিয়েছে।

মন্ত্রী জানিয়েছেন, বিশ্বে ১৩টি দেশে বাঘ রয়েছে। ভারতেই ৭০ শতাংশ বাঘ রয়েছে। এই মুহূর্তে দেশের মধ্যে পঞ্চাশটি ব্যাঘ্রপ্রকল্পতে বাঘ ও অন্যান্য জন্তু বেড়ে উঠছে। ‘স্মল ক্যাটস’ – এর উপর তথ্যসমৃদ্ধ একটি পোস্টার গতকাল প্রকাশ করা হয়েছে। বাঘ শুমারির সময় বহু বনকর্মী কাজ করেছেন। তাদের অসীম সাহসের জন্য কৃতিত্ব দেওয়া হয়েছে গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডে ভারতবর্ষ জায়গা করে নিয়েছে বাঘ সংরক্ষণের ক্ষেত্রে। এই কথা বন ও পরিবেশ মন্ত্রকের প্রতিমন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয় জানিয়েছেন।

৬০০ পাতার একটি রিপোর্ট তৈরি হয়েছে। জানা গিয়েছে ৩০ হাজার হাতি, ৩১০০ গন্ডার, ৫০০ টির কাছাকাছি সিংহ রয়েছে ভারতবর্ষে। প্রথমবার এই তথ্য দেশের মানুষের কাছে তুলে ধরা হল। রিপোর্টে জানানো হয়েছে, ভারতের মধ্যে মধ্যপ্রদেশ ও কর্নাটকে সবথেকে বেশি বাঘ রয়েছে। বক্সা ও উত্তর পূর্ব ভারতের তিনটি ব্যাঘ্র প্রকল্প এই মুহূর্তে খালি। সেখানে বাঘ নেই। ওই এলাকায় ফের বাঘ প্রতিস্থাপন করার ভাবনা চিন্তা চলছে।

২০০৬ সালে তথ্য প্রকাশ করা হয়েছিল। দেখা যায় ভারতবর্ষে বাঘের সংখ্যা অত্যন্ত কমে গিয়েছে। মাত্র ১০১৪ টি বাঘ রয়েছে ভারতবর্ষে। রয়েল বেঙ্গল টাইগারকে বাঁচানোর জন্য কেন্দ্রীয় সরকার কাজ শুরু করে। ২০০৬ থেকে ২০১৮ এই ১২ বছরে ৬ শতাংশ বাঘ ভারতবর্ষে বেড়েছে। এই ঘটনা এক নজিরবিহীন। ২০১৮ সালে বাঘ শুমারির পূর্ণাঙ্গ রিপোর্ট প্রকাশ করা হয়েছে।

প্রকৃতির ভারসাম্য রয়েছে এই দেশে। বাঘের উপস্থিতি বুঝিয়ে দিচ্ছে সেই কথা। ভারতের মতো দেশে বন্যপ্রাণ ও জঙ্গল সংরক্ষণ এক অন্যতম সমস্যা। বিশ্বের ১৬ শতাংশ জনসংখ্যা এই দেশে। মোট জমির মাত্র ২.৫ শতাংশ ভারতবর্ষে অবস্থান করছে। মোট বৃষ্টিপাতের ৪ শতাংশ ভারতবর্ষে হয়। কিন্তু জীব বৈচিত্রতে অনেকটাই এগিয়ে ভারতবর্ষ। বিশ্বের ৮ শতাংশ জীববৈচিত্র এই ভারতবর্ষে পাওয়া যায়। ভারতবর্ষ প্রকৃতিগতভাবে এখনও যথেষ্ট উন্নত। এমনই দাবি করেছেন কেন্দ্রীয় বনমন্ত্রী।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।