বোধোদয়! মিছিল, র‍্যালি রাজ্যে নিষিদ্ধ করল নির্বাচন কমিশন

ফোর্থ পিলার

শেষ সময়ে বোধোদয় হল নির্বাচন কমিশনের। করোনা ভাইরাস পরিস্থিতিতে নড়েচড়ে বসল কমিশন। শেষ দুই দফার ভোটের আগে পশ্চিমবঙ্গে বড় মিটিং, মিছিল, র‍্যালি করা যাবে না। এই নিষেধাজ্ঞা জারি করল কমিশন। রাজ্য নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে দিল্লির কর্তারা আলোচনা করেন। তারপরে এই সিদ্ধান্ত বলে জানা গিয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাতটা থেকে এই সিদ্ধান্ত কার্যকর হয়ে গিয়েছে বলে খবর।
কলকাতা হাইকোর্ট নির্বাচন কমিশনকে তাদের ভূমিকা নিয়ে কার্যত আজ তুলোধনা করেছে। এদিকে পশ্চিমবঙ্গে করোনার দাপট প্রতিদিন বাড়ছে। কাঠগড়ায় দাঁড় করানো হচ্ছিল কমিশনকে। শেষপর্যন্ত এবার কঠোর ভূমিকা নিল কমিশন। তার থেকেও বড় কথা ষষ্ঠ দফার ভোট ছিল আজ বৃহস্পতিবার। কমিশন নির্দেশ দিয়েছিল করোনা বিধি মেনে তিন জেলায় ভোটগ্রহণপর্ব করতে হবে।

দেখা গেল হাতেগোনা কিছু জায়গায় করোনাবিধি মেনে চলা সম্ভব হয়েছে। ষষ্ঠ দফার ভোট হিংসা অব্যাহত। মাস্ক না পরে, সামাজিক দূরত্ববিধি ভুলে রাজনৈতিক দলের কর্মী- সমর্থকরা রাস্তায় কার্যত হিংসা ছড়াচ্ছেন। এই প্রেক্ষাপটে আর অপেক্ষা করা সম্ভব ছিল না। কমিশনের বড় সভা, মিছিল, র‍্যালির উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হল। বাইক র‍্যালিও করা যাবে না আর। এর আগে নির্বাচন কমিশন জানিয়েছিল, সকাল ১০ টা থেকে সন্ধ্যে সাতটা পর্যন্ত প্রচার করা যাবে।

সামাজিক দূরত্ববিধি মেনে চলতে হবে। এছাড়াও ভোটের জন্য শেষ প্রচার ৪৮ ঘন্টা থেকে বাড়িয়ে ৭২ ঘণ্টা করে দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু তারপরেও রাজনৈতিক দলের নেতারা করোনা বিধি মেনে চলতে পারেননি। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ইতিমধ্যেই তার বঙ্গসফর বাতিল করেছেন। অমিত শাহ আর রাজ্যে আসবেন না। তিনিও সমস্ত সভা বাতিল করলেন। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় টুইট করেছেন। তিনি ভোটের বাকি দিনগুলোতে ভার্চুয়াল সভা করবেন। প্রকাশ্য জনসভায় তৃণমূলের পক্ষ থেকে হচ্ছে না।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।