ব্রাজিলকে টেক্কা দিয়ে করোনা আক্রান্তের তালিকায় উপরে ওঠার অপেক্ষায় ভারত

ফোর্থ পিলার

সংক্রমণের তালিকায় ভারত দ্বিতীয় স্থানে উঠে আসতে পারে। এখন শুধু সময়ের অপেক্ষা। দ্বিতীয় স্থানে আছে ব্রাজিল। সেই দেশে করোনা ভাইরাস আক্রান্তের সংখ্যা ৪০ লক্ষ পেরিয়েছে। ভারতবর্ষ আক্রান্তের হিসেবে তৃতীয় স্থানে রয়েছে। প্রায় সাড়ে ৩৯ লক্ষ দেশের করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা। অর্থাৎ আগামী ২৪ ঘন্টার মধ্যেই ভারতবর্ষ ব্রাজিলকে টেক্কা দিয়ে দ্বিতীয় স্থানে উঠে আসবে। প্রথম স্থানে এখনও রয়েছে আমেরিকা।

গত দু’দিন ধরে ৮৪ হাজার সংক্রমণ দেখা যাচ্ছে প্রতিদিন। আনলক ৪ প্রক্রিয়া চলছে ভারতে। আগামী দিনে মেট্রো পরিষেবা শুরু হবে। ভারতীয় রেল চালানোর জন্য চিন্তাভাবনা চলছে। এদিকে করোনা ভাইরাস আক্রান্তের সংখ্যা গত ২০ দিনে লাফিয়ে বেড়েছে। সেপ্টেম্বর মাস জুড়ে আক্রান্তের সংখ্যা কোথায় গিয়ে দাঁড়াবে সে সম্পর্কে যথেষ্ট প্রশ্ন রয়েছে। অ্যান্টিবডি শরীরে তৈরি হচ্ছে ঠিকই। তারপরেও আক্রান্ত হওয়ার ঘটনা চোখে পড়ছে।

দেশের করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা মূলত পাঁচটি রাজ্যের সব থেকে বেশি রয়েছে। মহারাষ্ট্র অন্ধ্রপ্রদেশ কর্ণাটক উত্তরপ্রদেশ তামিলনাড়ু এই পাঁচ রাজ্যের সংক্রমণ বিশাল মাত্রায় পৌঁছেছে। গোটা দেশের ৬২ শতাংশ আক্রান্ত এই পাঁচ জেলায় রয়েছে। পরিস্থিতি আগামী দিনে কোথায় গিয়ে দাঁড়াবে? তাই নিয়ে যথেষ্ট চিন্তাভাবনা আছে। শরীরে অ্যান্টিবডি কতদিন কাজ করবে? তা নিয়ে যথেষ্ট চিন্তায় রয়েছেন চিকিৎসকরা। নোভেল করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে অ্যান্টিবডি কতদিন শরীরে বেঁচে থাকতে পারে? তার এখনও কোনও সঠিক তথ্য পাওয়া যায়নি।

আইসিএমআর – এর পক্ষ থেকে জানানো হচ্ছে এক বছরের বেশি সময় অ্যান্টিবডি সক্রিয় থাকবে না। ইনফ্লুয়েঞ্জার মতো করোনা ভাইরাস ফুসফুসে গিয়ে আক্রমণ করে। শ্বাসযন্ত্র ক্ষতবিক্ষত করে। এই মুহূর্তে ইনফ্লুয়েঞ্জার জন্য টিকা নেওয়া হয়। করোনা ভাইরাসের ক্ষেত্রেও একই পদ্ধতি থাকছে। সেপ্টেম্বর মাসের পর থেকে দেশে করোনা ভাইরাসের প্রকোপ কমতে শুরু করবে। এমন কথা মনে করছে বিজ্ঞানীরা।

ততদিনে সংক্রমণ কোথায় গিয়ে দাঁড়ায়? মনে করা হচ্ছে আগামী ২৫ সেপ্টেম্বরের মধ্যে ভারতবর্ষে মোট আক্রান্ত ৫০ লক্ষ পৌঁছে যাবে। মৃত্যুহার ভারতবর্ষে অনেক কম। একমাত্র এটিই এখন আশার বিষয়।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।