ভারত থেকে ব্যবসা গুটিয়ে নিচ্ছে হার্লে ডেভিলসন

ফোর্থ পিলার

জল্পনা আখেরে সত্যি হল। ভারত থেকে ব্যবসা সরাচ্ছে হার্লে ডেভিলসন। আমেরিকার বহুজাতিক এই মোটরবাইক সংস্থা ভারত থেকে তাদের ব্যবসা তুলে নিচ্ছে। হরিয়ানায় বাওয়ালের কারখানা ছিল হার্লে ডেভিডসনের। সেই কারখানা বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে। ক্রেতারা পরিষেবা পাবেন। এ কথা জানানো হয়েছে সংস্থার পক্ষ থেকে।

মার্কিন এই সংস্থা ঢেলে সাজাবে। সে কারণেই ভারত থেকে ব্যবসা গুটিয়ে নেওয়া হচ্ছে। জানা গিয়েছে এই বাইকের ক্ষেত্রে কর অত্যন্ত চড়া। তাই মার্কিন সরকার সেই কড় তুললে আবেদন পর্যন্ত তুলেছিল। শুরু থেকেই ভারত-মার্কিন বাণিজ্যে দর কষাকষির মাধ্যম হয়েছে হার্লে ডেভিডসন। ২০০৭ সালে কেন্দ্রীয় সরকার কিছু নিয়মকানুন তৈরি করে এদেশে এই বাইক আমদানি করতে শুরু করে। কিন্তু সমস্যা থেকেই গিয়েছিল।

গত বছর ডোনাল্ড ট্রাম্প সরকার কার্যত ভারতের ওপর চাপ তৈরি করেছিল। ফলে ১০০ শতাংশ কর থেকে ৫০ শতাংশ নামানো হয়েছিল। কেন্দ্র বাধ্য হয়েছিল। কিন্তু মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এই কথা খুব একটা মানতে পারেনি। সম্প্রতি বলা হয়েছিল হার্লে ডেভিডসন’-এর করের পরিমাণ আরও কমাতে হবে। কিন্তু এই কথা খুব একটা গৃহীত হল না। এই দেশ থেকে মার্কিন বহুজাতিক গাড়ি সংস্থা জেনারেল মোটরস তাদের ব্যবসা সরিয়ে নিয়েছে। ফোর্ড কোম্পানি ব্যবসার সিংহভাগ সম্পত্তি মাহিন্দ্রার সঙ্গে গড়তে উদ্যোগী হয়েছে। টয়োটা নিজেদের ব্যবসা সরিয়ে নিতে বদ্ধপরিকর। এই অবস্থায় গাড়ি শিল্পতে এবার হার্লে তাদের ব্যবসা সরিয়ে নিল।

ভারতে গাড়ি শিল্পের মন্দা পরিস্থিতি চলছে। গত ছয় মাস ধরেই ব্যবসা কার্যত নেই বললেই চলে। গত বছর থেকেই এই অস্বস্তিকর পরিস্থিতি তৈরি হয়েছিল। এবার হার্লে ডেভিডসন’-এর সরে যাওয়া এক গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা বলে মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল। ইতিমধ্যেই কংগ্রেস এই ঘটনায় বিজেপি আক্রমণ করতে শুরু করেছে।

ভারতে ১২ বছরেরও বেশি সময় ধরে ব্যবসা করেছে আমেরিকার এই সংস্থা। ভারতে তাদের একটি কারখানা ও ৩৩টি শোরুম ছিল। এবার শোরুমগুলিও বন্ধ করা হবে বলে খবর। অনেক কর্মী কাজ হারাবেন বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। করোনা সংক্রমণের পর থেকেই কর্মী ছাঁটাই চলছিল সংস্থা।  

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।