ভ্যাকসিনের গাড়ি আটকে থাকল অবরোধে, নেতৃত্বে সিদ্দিকুল্লা চৌধুরী

ফোর্থ পিলার

গ্রন্থাগার মন্ত্রীর নেতৃত্বে জাতীয় সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ চলছে। পুলিশ প্রশাসন প্রথমদিকে কোনও গা করেনি। জাতীয় সড়ক ধরে বহু গাড়ি আটকে ছিল। করোনা ভ্যাকসিনের গাড়ি আটকে যায় এই অবরোধের কারণে। করোনা ভ্যাকসিন পূর্ব মেদিনীপুর হয়ে বাঁকুড়া যাচ্ছিল। কিন্তু সে কথা জেনেও বিক্ষোভ অবরোধ সরে যায়নি। শেষপর্যন্ত ঘুরপথে কনভয় অন্য রাস্তায় যায়। অনেক পরে জাতীয় সড়ক ধরে বাঁকুড়া পৌঁছায় ভ্যাকসিন। এই ঘটনায় তৃণমূল কংগ্রেস আরও একবার নিন্দিত হল বিরোধীদের কাছে।

বর্ধমান গলসি ২ নম্বর জাতীয় সড়ক অবরোধ করে আন্দোলন করছিল জমিয়তে উলামায়ে হিন্দ। নেতৃত্বে ছিলেন গ্রন্থাগার মন্ত্রী সিদ্দিকুল্লা চৌধুরী। বহু কর্মী-সমর্থক জাতীয় সড়ক অবরোধ করেছিলেন। মন্ত্রী বক্তব্য রাখেন সেখানে। প্রশাসন প্রথম দিকে তেমন কোনও গা করেনি। এদিন জেলায় করোনা ভাইরাস পৌঁছানোর কথা ছিল। বর্ধমানে করোনা ভাইরাসের টিকা পৌছে দেওয়া হয়।

ইনসুলেটেড ভ্যান সহ করোনা ভ্যাকসিন এরপর বাঁকুড়া যাবে। বর্ধমান থেকে ওই রাস্তা ধরে বাঁকুড়া যাচ্ছিল করোনা ভ্যাকসিনের গাড়ি। কিন্তু বেশি দূর যেতে পারেনি। আটকে পড়ে বিক্ষোভ অবরোধের কারণে। ভ্যাকসিনের গাড়ি আটকে রয়েছে সে কথা জেনেও বিক্ষোভ সরানো হয়নি।


শেষ পর্যন্ত আসরে নামে পুলিশ। বিক্ষোভ সরানো হয়নি সেইসময়। উলটে ভ্যাকসিনের গাড়িকে অন্য রাস্তায় নিয়ে যাওয়া হয়। ভিতরের খান্দাখন্দ ভরা রাস্তা দিয়ে ভ্যাকসিনের গাড়ি এগোতে থাকে। দীর্ঘ রাস্তা এভাবে যেতে হয়। পরে বুদবুদের কাছে ফের জাতীয় সড়কে ওঠে গাড়ি।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।