মেসিকে জড়িয়ে উচ্ছ্বাস সতীর্থদের, দেশের হয়ে প্রথম বড় খেতাব তার

ফোর্থ পিলার

রেফারি ফাইনাল বাঁশি বাজাতেই উৎসব শুরু হয়ে গেল আর্জেন্টিনায়। লিওনেল মেসি রীতিমতো আবেগতাড়িত। তিনি সতীর্থদের সঙ্গে আনন্দ ভাগ করে নিতে শুরু করলেন। গ্যালারিতে সামান্য কয়েক জন আর্জেন্টিনার সমর্থক তখন উন্মাদনায় মত্ত। গোটা বিশ্ব সেসময় দু’ভাগে বিভক্ত। আর্জেন্টিনার ভক্তরা উৎসব শুরু করে দিয়েছে। ব্রাজিলের সমর্থকরা হতাশায় ডুবেছিল।

কোপা আমেরিকা ট্রফি এবার আর্জেন্টিনার। এঞ্জেলো ডি মারিয়ার গোলে ২২ মিনিটে এগিয়ে গিয়েছিল আর্জেন্টিনা। সেই গোল শোধ করে ম্যাচে ফিরতে পারেননি নেইমাররা। একসময় আর্জেন্টিনার জালে বল ঢোকাতে রীতিমতো আক্রমণ শুরু করে ব্রাজিল। কিন্তু সেই ব্রাজিলীয় আক্রমণ কোপা আমেরিকার ফাইনালে দেখতে পাওয়া গেল না। লিওনেল মেসি খেলা শেষে রীতিমতো আনন্দিত। এই জয় তার ফুটবল ক্যারিয়ার জীবনের অন্যতম প্রাপ্তি। আন্তর্জাতিক ফুটবলে মেসি কোনও বড় ট্রফি এখন অবধি পাননি। ফিফা ওয়ার্ল্ড কাপ তার অধরা রয়েছে এখনও।

কোপা আমেরিকা অধরা ছিল। ক্যারিয়ার জীবনের সায়ান্নে এসে পৌঁছেছেন মেসি। সম্ভবত এটিই তাঁর শেষ কোপা আমেরিকা টুর্নামেন্ট। তাই কাপ জেতার জন্য মরিয়া ছিলেন মেসি। অন্যদিকে গতবছর মারা গিয়েছেন ফুটবলের রাজপুত্র দিয়েগো মারাদোনা। তার স্মরণে আর্জেন্টিনা এবার ট্রফি জিততে মরিয়া ছিল। এক্ষেত্রে কোপা আমেরিকায় শুরু থেকেই আর্জেন্টিনা সংঘবদ্ধভাবে খেলে গিয়েছে। অপ্রতিরোধ্য হয়ে ফাইনালে উঠেছে তারা। কোপা আমেরিকা তারা শেষ করল রাজকীয় ভঙ্গিতে।

ডি মারিয়া ও মেসি একে অপরকে জড়িয়ে ধরেছিলেন অনেকক্ষণ। কান্না ভেজা মুখ তখন ডি মারিয়ার। রীতিমতো লাফিয়ে কোলে উঠে যান মেসি। সেই ভিডিও এখন সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল। আরও দুটি মনে দাগ কাটা ভিডিও এই মুহূর্তে সোশ্যাল মিডিয়ায় ঘুরছে। খেলার শেষে মেসিকে কার্যত মাথায় তুলে নিয়েছেন সতীর্থরা। সেই জয় মেসিকে কার্যত উৎসর্গ করা হল। নেইমার খেলা শেষে হতাশায় ডুবে গিয়েছিলেন। অঝোর ধারায় কাঁদতে শুরু করেন তিনি। মেসি ও নেইমার দুজনেই বার্সেলোনায় খেলেছেন। ক্লাব ফুটবলে তারা একে অপরের সতীর্থ। এই অবস্থায় মেসি নেইমারকে জড়িয়ে ধরেন। মেসিকে আঁকড়ে ধরে বেশ কিছুক্ষণ ছিলেন নেইমার।

৯০ মিনিটের খেলায় একে অপরের প্রতিপক্ষ ছিল। ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা খেলার শেষে শেষপর্যন্ত ফিরে এল মধুর স্মৃতি। রাজার লড়াইতে শেষ পর্যন্ত জিতল ফুটবল। দীর্ঘ ২৮ বছর আর্জেন্টিনা কোপা আমেরিকা ট্রফি পায়নি। সেই শাপমুক্তি হল এবার। উরুগুয়ে এখন অবধি ১৬ বার কোপা আমেরিকা ট্রফি পেয়েছে। সেই রেকর্ড ছুঁয়ে ফেলল আর্জেন্টিনা। মেসি বন্দনায় আর্জেন্টিনার ভক্তরা উদ্বেল। যদিও এদিন মেসি তার সহজাত খেলা থেকে সরে গিয়েছিলেন। ফাইনালে তার কাছ থেকে কোনও দৃষ্টিনন্দন শট উপহার পাওয়া যায়নি। দ্বিতীয়ার্ধে অত্যন্ত সহজ গোল মিস করেছেন মেসি। তার কাছ থেকে এই গোল মিস করা কখনওই কাম্য নয়। বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, মেসিও যে এই খেলায় রীতিমতো স্নায়ুযুদ্ধে ছিলেন। তা বেশ বোঝা যায়।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।