রোহিতের ব্যাটিংয়ে খড়কুটোর মতো উড়ে গেল বাংলাদেশ, সমতা এল সিরিজে

ফোর্থ পিলার

রাজকোটের মাঠে সহজ জয় পেল রোহিত শর্মার টিম ইন্ডিয়া। পাঁচওভার বাকি থাকতেই জয়ের জন্য প্রয়োজনীয় রান তুলে নেয় ভারত। রোহিত শর্মার বিধ্বংসী ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ খড়কুটোর মতো উড়ে যায়। ঘূর্ণিঝড় ‘মহা’র প্রভাবে প্রাকৃতিক দুর্যোগ হওয়ার আশঙ্কা ছিল। কিন্তু মূর্তিমান দুর্যোগ হয়ে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ব্যাট করলেন হিটম্যান।

বাংলাদেশ এদিন শুরুতে ব্যাট করতে নামে। বাংলাদেশের ওপেনাররা যে মন্দ শুরু করেছিলেন এমনটা নয়। প্রথম ছয় ওভারে ৫০ রান তুলে ফেলেন লিটন দাসরা। কিন্তু এরপরে ভারতীয় বোলাররা খেলায় ফিরে আসেন। দলের ৬০ রানের মাথায় লিটন দাস তাড়াহুড়ো করে আউট হয়ে যান। এরপর একে একে উইকেট পড়তে থাকে বাংলাদেশের। যে বড় রানের পার্টনারশিপ হওয়ার প্রয়োজন ছিল তা দেখা যায়নি। প্রথম ১০ ওভারে বাংলাদেশ তুলেছিল ৭৮ রান। শেষ ১০ ওভারে বাংলাদেশ মাত্র ৭৫ রান তোলে।

একসময় মনে হয়েছিল বাংলাদেশে হয়তো ১৭০ রান ছাড়িয়ে যেতে পারে। কিন্তু তা আর হয়নি। ১৫৪ রানের লক্ষ্যমাত্রা রাখা হয় ভারতের বিরুদ্ধে। জবাবে ব্যাট করতে নেমে শুরু থেকেই মারমুখী ছিলেন রোহিত শর্মা। প্রথম ম্যাচে তিনি তাড়াতাড়ি আউট হন। ম্যাচ হেরেছিল টিম ইন্ডিয়া। এবার যেন তার কাঁধেই সমস্ত দায়িত্ব। একের পর এক শট বাউন্ডারি পার করে দিচ্ছে।
শিশির ভেজা মাঠে ভারতের কাছে এই লক্ষ্যমাত্রা খুব একটা কঠিন নয় ড্রেসিংরুম ভালোই জানত। তবে এত সহজ জয় আসবে এমনটা ভাবা যায়নি।

রোহিত শর্মা ব্যক্তিগত ৮৪ রানের মাথায় আউট হন। মাত্র ৪০ বল খেলে এই রান তিনি করেছেন। বাংলাদেশের বোলার মোসাদ্দেকের ওভারে তিনটি পরপর ছয় মারেন রোহিত। গ্যালারিতে তখন উৎসাহের বাঁধভাঙা জোয়ার। ২৭ বলে ৩০ রান করে আউট হন শিখর ধাওয়ান। শেষ অবধি ২ উইকেট হারিয়ে ভারত প্রয়োজনীয় রান তুলে ফেলে। দ্বিতীয় ম্যাচে জেতার ফলে সিরিজে সমতা এল। শেষ ম্যাচে এখন ফয়সালা।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।