লাল বলে টেস্টে বিশ্ব জয় করতে নামছেন কোহলিরা

ফোর্থ পিলার

লাল বলে বিশ্বজয় করার লক্ষ্যে শুরু হচ্ছে যুদ্ধ। ইংল্যান্ডের মাটিতে অন্য দুই দেশ এই লড়াইয়ে নামছে। আকাশ পরিষ্কার নয়। বৃষ্টি হচ্ছে বারেবার। তার মধ্যেই ভারত ও নিউজিল্যান্ড নামবে। টেস্ট ক্রিকেটের বিশ্বচ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনাল শুরু হয়ে যাবে। বিরাট কোহলিদের সামনে এক মহীরুহ জোয়ার অপেক্ষা।

বিরাট কোহলি ও রবি শাস্ত্রী জুটি কোনও বড় টুর্নামেন্টে জয় পায়নি। এখনও আইসিসির কোনও টুর্নামেন্টে ট্রফি অধরা হয়ে রয়েছে। এবার লাল বলে বিশ্ব জয় করে সেই তকমা ভেঙে ফেলা উচিত। ইংল্যান্ডের মাটিতে নিউজিল্যান্ড কিছুটা এগিয়ে রয়েছে। এমন আশা করা যেতে পারে। ভারত দীর্ঘ সময় কোয়ারান্টাইন ছিল নিজের দেশে। খুব একটা ক্রিকেট ভারতীয় প্লেয়াররা খেলেননি। ইংল্যান্ডে এসেও বিরাট কোহলিরা কোনও প্রস্তুতি ম্যাচ খেলেননি।

অন্যদিকে নিউজিল্যান্ড ইংল্যান্ডের সঙ্গে প্রস্তুতি ম্যাচ খেলেছে। দুটি ম্যাচের সিরিজ হয়েছিল। দুটি খেলাতেই জিতেছেন কেন উইলিয়ামসনরা। নিউজিল্যান্ডের দিকে কিছুটা পাল্লা ভারী। এ কথা বলা হচ্ছে। যদিও বিরাট কোহলি, রোহিত শর্মা, চেতেশ্বর পূজারারা এই ধরনের কোনও বক্তব্য মানতে নারাজ। আজ ভারতীয় সময় দুপুর তিনটেয় এই খেলা শুরু হবে। পাঁচদিনের ম্যাচে রং বদলানোর আশা সব সময় থাকবে।

একদিকে মেঘাচ্ছন্ন আকাশ। অন্যদিকে বাউন্স করা উইকেট। এই দুই বিষয়কেই সামলাতে হবে ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের। এক্ষেত্রে রোহিত শর্মা, চেতেশ্বর পূজারা, বিরাট কোহলি, অজিঙ্কা রাহানের ওপর গুরুদায়িত্ব রয়েছে। একথা বলাই যায়। বিরাট কোহলি টেস্ট ফাইনাল হিসেবে আলাদা করে চাপ নিতে চাইছেন না। ভার্চুয়াল সাংবাদিক বৈঠকে জানিয়েছেন, ইংল্যান্ডের মাটিতে ছটা টেস্ট ম্যাচ খেলা হবে। নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে ফাইনাল খেলা রয়েছে। এছাড়া ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে পাঁচটি টেস্ট ম্যাচের সিরিজ। তাই সব খেলাকেই একসঙ্গে গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে।

বৃষ্টিতে ফাইনাল পণ্ড হয়ে যেতে পারে। এই আশঙ্কা করা হচ্ছে। সেক্ষেত্রে ভারত-নিউজিল্যান্ড দুটি দলকেই যুগ্ম বিজয়ী হিসেবে ঘোষণা করা হবে। সাদাম্পটনের মাঠে গতি থাকছে। তাই ফাস্ট বোলাররা বেশি সুবিধা পাবে। এক্ষেত্রে ভারত চার বোলারের দিকে ঝুঁকছে। মহম্মদ শামি, ইশান্ত শর্মা, জসপ্রীত বুমরাহ ভয়ঙ্কর হয়ে উঠতে পারে। তার অপেক্ষা রয়েছে। অন্যদিকে নিউজিল্যান্ডের ক্ষেত্রেও সাড়া জাগানো বোলার রয়েছেন। সাউদি, ট্রেন্ট বোল্ট অত্যন্ত ভয়ঙ্কর হয়ে উঠতে পারেন ইংল্যান্ডের মাটিতে লাল বলে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।