লোকালয়ের কাছেই ফাঁদে ধরা পড়ল বাঘ, হাঁফ ছাড়ল বাসিন্দাদের

ফোর্থ পিলার

প্রায় দেড় দিন পর স্বস্তি এল সুন্দরবনের বাসিন্দাদের বৈকুন্ঠপুর, মৈপিঠ এলাকায় বাঘের আতঙ্ক তাড়া করে বেড়াচ্ছে। লোকালয়ে হানা দিয়েছিল রয়েল বেঙ্গল টাইগার। রাস্তায় তাকে জিরোতে দেখা গিয়েছে। নদী পেরিয়ে মঙ্গলবার তাকে ম্যানগ্রোভের জঙ্গলে ঢুকতে দেখা যায়। বন দফতরের পাতা খাঁচায় শেষপর্যন্ত ধরা পড়ল অশ্বিনী রায়। তার শারীরিক পরীক্ষা করা হবে। সুস্থ থাকলে তাকে জঙ্গলে ছেড়ে দেওয়া হবে। বন দফতর সূত্রে এই খবর দেওয়া হয়েছে।

সোমবার রাতে বৈকুন্ঠপুর এলাকায় একটি বাক্যে দেখতে পাওয়া যায়। এলাকারই একটি গোয়ালে ঢুকে বাঘটি গরু মারে। রাতেই আতঙ্ক ছড়িয়েছিল গ্রামে। বৈকুন্ঠপুর মৈপিঠ এলাকা একদম নদীর ধারে। কাজেই বাঘ আসার সম্ভাবনা মাঝেমধ্যেই থাকে। রাতে টর্চের আলোয় দেখা যায় ডোরাকাটা একটি বাঘ রাস্তায় বসে রয়েছে। ঠিক অনেকটাই জিরিয়ে নেওয়ার ভঙ্গিমা। আলো পড়তেই বাঘটি পাশের ম্যানগ্রোভ অরণ্যতে ঢুকে যায়। সোমবার সন্ধ্যা থেকে ভয় কাজ করতে শুরু করে স্থানীয় বাসিন্দাদের মধ্যে।

এলাকায় বাঘ ঢুকেছে। সেই খবর যায় বন দফতরের কাছে। বন দফতরের কর্মীরা গ্রামে আসে। আজমলবাড়ির জঙ্গল থেকে ওই বাঘটি বেরিয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে মনে করা হচ্ছে। হেরোভাঙা নদী পেরিয়ে বাঘটি লোকালয়ে চলে আসে। মঙ্গলবার সকালে বাঘটিকে নদীতে সাঁতরাতে পর্যন্ত দেখতে পাওয়া গিয়েছে। এরপর বন দফতরের লোকজন তিনটি এলাকায় খাঁচা পাতে তাকে ধরার জন্য। বুধবার সকালে সেই একটিতে ধরা পড়ে ওই ব্যক্তি বাঘ।

বন দফতরের কর্মীরা মনে করছে এটি একটি পূর্ণবয়স্ক বাঘ। সাধারণত বয়স হলে বাঘের শিকার ধরার শক্তি কমে যায়। তখন তারা লোকালয়ে ঢুকে গরু-ছাগল মারার চেষ্টা করে। এক্ষেত্রে এই বাঘের বয়স কত? সেটা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। তাঁর শারীরিক অবস্থা কি! তা পরীক্ষা হবে। সেটি সম্পূর্ণ সুস্থ থাকলে জঙ্গলে ছেড়ে দেওয়া হবে বলে জানা যাচ্ছে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।