শিক্ষামন্ত্রী মানলেন না দাবি, আরও বড় আন্দোলনে শিক্ষক- শিক্ষিকারা, সাত ঘণ্টা ধরে চলছে অবস্থান

ফোর্থ পিলার

প্রাথমিক শিক্ষকদের আন্দোলন আরও বড় আকার ধারণ করতে চলেছে। রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে প্রতিনিধি দলের বৈঠক ব্যর্থ হয়েছে বলে খবর। শিক্ষামন্ত্রী তাদের দাবি মেনে নেননি। এই কথা জানার পরেই টানা আন্দোলনের ডাক দেওয়া হয়েছে। শুধু তাই নয় ধারাবাহিক আন্দোলনে অনশন কর্মসূচিও শুরু হতে পারে বলে খবর।

যাদবপুর এইটবি বাসস্ট্যান্ড থেকে যে মিছিল আজ শুরু হয়েছিল তাকে পুলিশ বাঘাযতীন মোড়েই আটকে দেয়। তারপর থেকে অবস্থানকারীরা রাস্তাতেই বসে রয়েছেন। প্রায় সাত ঘণ্টা ধরে সম্পূর্ণ বন্ধ যাদবপুর – বাঘাযতীন সংলগ্ন এলাকা। যাদবপুরের সঙ্গে গড়িয়াহাটের যোগাযোগ সম্পূর্ণ বিচ্ছিন্ন। একটি সূত্রে পাওয়া খবর অনুযায়ী হয়তো প্রাথমিক শিক্ষক – শিক্ষিকারা যাদবপুর পার্কে গিয়ে অবস্থান করবেন। তবে প্রায় হাজার ত্রিশের উপর অবস্থানকারী এই মুহূর্তে রাস্তায় বসে রয়েছেন। তাদের এত সংখ্যক উপস্থিতি কিভাবে সম্ভব হবে তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

বৈঠক ব্যর্থ হওয়ার খবর আসার পরে পুলিশি নিরাপত্তা আরও আঁটোসাটো করা হয়েছে। শিক্ষামন্ত্রী এই আন্দোলনকে কোনওভাবেই মেনে নিচ্ছেন না। রাস্তায় দেওয়াল তুলে পুলিশকর্মীরা অবস্থান করছেন। রাস্তার একদিকে অন্যপ্রান্তে বিক্ষোভ চালাচ্ছেন। প্রাথমিক শিক্ষক – শিক্ষিকাদের দাবি শিক্ষামন্ত্রী তাদের অভিভাবক।

ফিটমেন ফ্যাক্টরের বিষয়ে তারা শিক্ষামন্ত্রীর কাছে আর্জি জানিয়েছিলেন। সেই দাবি দীর্ঘদিন ধরেই জানিয়ে আসা হচ্ছে। এদিনও প্রতিনিধি দলের পক্ষ থেকে শিক্ষামন্ত্রীর কাছে গিয়ে এই আবেদন জানানো হয়। কিন্তু পার্থ চট্টোপাধ্যায় রাজি হননি। আন্দোলনের রূপরেখা এরপর কোন দিকে যায় তা অবশ্যই নজরে রাখতে হবে। ওয়াকিবহাল মহল বলছে রাতের থেকেই কোনও বড় আন্দোলনের রূপ পেতে পারে এই ঘটনা।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।