সব থেকে পুরনো গণতন্ত্র রক্ষায় লড়াই ট্রাম্প ও জো বাইডেনের

ফোর্থ পিলার

পৃথিবীর সব থেকে পুরনো গণতন্ত্রের ভোট প্রক্রিয়া। একদম শেষ লগ্নে রয়েছে সমগ্র পরিস্থিতি। ৭০ পেরিয়ে যাওয়া দুটি মানুষ যুযুধান দুই পক্ষ হিসেবে লড়াই করছেন গত বেশ কয়েক মাস ধরে। হোয়াইট হাউসে কে আসবে তার হিসেব নিকেষ এখনও দেরি আছে। সমীক্ষা জানাচ্ছে, ডেমোক্রাট প্রার্থী জো বাইডেন মানুষের মতামতে অনেকটাই এগিয়ে। দ্বিতীয়বারের জন্য রিপাবলিকান প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প নাও ফিরতে পারেন।

আর কয়েক ঘণ্টা বাদেই আমেরিকায় শুরু হয়ে যাবে নির্বাচন। ইতিমধ্যেই আর্লি ইমেইল ভোটিং শুরু হয়েছে। সেই ট্রেন্ড এই মুহূর্তে ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিপক্ষে বলে মনে করা হচ্ছে। আমেরিকায় ভোটদানে দুটি প্রক্রিয়া রয়েছে। ইমেইল ভোটিং, এছাড়া সরাসরি ভোটকেন্দ্রে গিয়ে ভোট দেওয়া। করোনা ভাইরাস পরিস্থিতিতে এবার ইমেইল ভোটিংয়ের দিকেই বেশি জোর দেওয়া হচ্ছে। এছাড়া ব্যালটে ভোট দেওয়া হবে। ইমেইলে দেওয়া ভোটের গণনা পরে হবে। সেই ক্ষেত্রে ডোনাল্ড ট্রাম্প আগেই জানিয়েছেন, তিনি ভোটে কারচুপির আশঙ্কা করছেন।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প গত বেশ কয়েক মাস ধরেই চূড়ান্ত প্রচার চালিয়েছেন। জো বাইডেন প্রচার চালিয়েছেন তাদের নিজস্ব ঢঙে। গুরুত্বপূর্ণ প্রদেশগুলোতে ডেমোক্র্যাট প্রার্থী এবার যথেষ্ট এগিয়ে রয়েছে মনে করা হচ্ছে। কালিফোর্নিয়া, নিউ জার্সি, ওয়াশিংটন ডিসি, নিউ মেক্সিকো, নিউইয়র্ক প্রকৃতি জায়গায় জো বাইডেনের সমর্থন এবার যথেষ্ট। ভোট প্রচারে গিয়েই এই বিষয়টি নজরে এসেছে। সমীক্ষাতে উঠে এসেছে সেই কথা।

ডোনাল্ড ট্রাম্প এগিয়ে আছেন মিসিসিপি, লুইসিয়ানা, কানসাস, জর্জিয়া, মন্টানা, মিসৌরি, ভার্জিনিয়া, আলাবামা, টেনেসি প্রভৃতি প্রদেশে। পরিস্থিতি বলছে, এগিয়ে থাকার মাধ্যমেও খুব একটা বেশি কিছু প্রকাশ করা যায় না। কারণ জনমত শেষপর্যন্ত কোনদিকে বইবে, তার কোনও ঠিক নেই। মার্কিন ভোটে আগেও খুব একটা বেশি প্রকাশ পায়নি এই ট্রেন্ড। তবে বারাক ওবামার ক্ষেত্রে পরিস্থিতি অন্যরকম ছিল।

এবারের ভোটে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু করোনা ভাইরাস আমেরিকা। মারণ ভাইরাস থাবা বসিয়েছে আমেরিকায়। পৃথিবীর সব থেকে বেশি সংক্রমণ ও মৃত্যু আমেরিকায়। প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প করোনা রুখতে ব্যর্থ। এই কথা প্রচার হচ্ছে। জীবিকা নির্বাহ পরিস্থিতি অত্যন্ত সমস্যাজনক জায়গায়।

এছাড়াও অভিবাসন নীতি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে ভারতীয়দের ক্ষেত্রে। বর্ণবৈষম্য সমস্যা গোটা আমেরিকা জুড়ে এই মুহূর্তে মাথাচাড়া দিয়ে রয়েছে। জুলাই – আগস্ট মাসে বর্ণবৈষম্য আন্দোলনে উত্তাল হয়ে উঠেছে আমেরিকা। এই পরিস্থিতিতে কি করে মার্কিন প্রেসিডেন্ট নিজের রাস্তা পরিষ্কার রাখেন! তা নিয়ে যথেষ্ট নজর রয়েছে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।