সাধারণ মানুষের স্বাস্থ্যে নজর, অক্টোবরেই টিকা আনছেন ট্রাম্প

ফোর্থ পিলার

সাধারণ মানুষের স্বাস্থ্য সরকারের কাছে সব থেকে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। অক্টোবরেই করোনা ভাইরাসের টিকা আনতে চলেছে ডোনাল্ড ট্রাম্প সরকার। মার্কিন প্রেসিডেন্ট সাংবাদিক সম্মেলন করে এই কথা জানিয়ে দিয়েছেন। তিনি যা বলেন তাই করেন। কাজেই অক্টোবরেই করোনা ভাইরাসের টিকা হোয়াইট হাউজ নিয়ে আসছে। জোর দিয়ে এই কথা জানিয়েছেন। এর আগে নভেম্বরের শুরুতে টিকা আনার কথা ঘোষণা করেছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট।

আমেরিকায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা সর্বাধিক। ৬০ লক্ষ পেরিয়ে গিয়েছে। আক্রান্ত প্রতিদিনই বাড়ছে। নভেম্বর মাসে মার্কিন মুলুকে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন। দুই দলই নির্বাচনে ঝড় তুলছে। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প একের পর এক নির্বাচনী জনসভা করছেন। রিপাবলিকান পার্টির নমিনেশন গ্রহণ করে ডোনাল্ড ট্রাম্প আরও বেশি করে কড়া সমালোচনা শুরু করেছেন। পিছিয়ে নেই ডেমোক্র্যাট পার্টির প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী জো বাইডেন। তিনিও আক্রমণ করছেন মার্কিন প্রেসিডেন্টকে। এই অবস্থানে আরও একবার তুরুপের তাস ভ্যাকসিন সম্পর্কে বার্তা দিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট।

জো বাইডেন মন্তব্য করেছিলেন, এত দ্রুত করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিন আনা সম্ভব নয়। এক্ষেত্রে সামাজিকভাবে সমস্যা দেখা দিতে পারে। ঝুঁকি থাকতে পারে ভ্যাকসিনের মধ্যেই। যদিও এই বক্তব্যকে কার্যত উড়িয়ে দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। সাধারণ মানুষের স্বাস্থ্য সম্পর্কে খেয়াল রাখা প্রাথমিক কর্তব্য। হোয়াইট হাউস থেকে সাংবাদিক সম্মেলনে এই কথা জানিয়েছেন তিনি। সেজন্যই অক্টোবর মাসে এই টিকা আমেরিকা নিয়ে আসবে।

ডোনাল্ড ট্রাম্পের বক্তব্য, “আমি যেটা বলি সেটাই করি। যদি বলি আগামী কালই ভ্যাকসিন আনব, তো সেটাই করব। আমার সিদ্ধান্ত যদি প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রভাব ফেলে তো ফেলুক। দেশবাসীর সুরক্ষা সবচেয়ে আগে। ” আমেরিকার স্বাস্থ্য বিভাগ এই বিষয়ে সবুজসংকেত দিয়েছে। প্রতিদিনই আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। তাই যে কোনও উপায়ে সংক্রমণ কমাতে হবে। কিভাবে টিকা বাজারে নিয়ে আসা হবে সে সম্পর্কে আলোচনা চলছে। এই মুহূর্তে রাজ্যের প্রধানদের সঙ্গে এ বিষয় নিয়ে আলোচনা হচ্ছে। কারা প্রথম টিকা পাবেন সে সম্পর্ক খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

আমেরিকায় এখন টিকার দৌড়ে এগিয়ে রয়েছে দুটি ফার্মা কোম্পানি। জায়ান্ট মোডার্না বায়োটেক ও ফাইজার। মোডার্নার তৃতীয় স্তরের ভ্যাকসিন ট্রায়াল চলছে বলে খবর। দেশের ৩০ হাজার মানুষকে পরীক্ষামূলকভাবে টিকা দেওয়া হচ্ছে। মোডার্নার এমআরএনএ ভ্যাকসিন তথা এমআরএনএ-১২৭৩ ভ্যাকসিন ক্যানডিডেটর গবেষণা আরও অনেকটাই এগিয়েছে। ট্রায়ালের দায়িত্বে রয়েছে হোয়াইট হাউসের স্বাস্থ্য উপদেষ্টা অ্যান্থনি ফৌজির ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব হেলথ। তবে নভেম্বরের আগেই মোডার্না সাধারণ মানুষের জন্য ভ্যাকসিন আনতে পারবে? এখনও রয়েছে চূড়ান্ত অনিশ্চয়তা।

জার্মান সংস্থা বায়োএনটেকের সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে কাজ শুরু করেছে মার্কিন ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানি ফাইজার। জার্মানি, অস্ট্রেলিয়া, ব্রাজিল সহ একাধিক দেশে টিকার ট্রায়াল চলছে। সেই ট্রায়াল কবে শেষ হবে, তা স্পষ্ট নয়। তাহলে কি চূড়ান্ত পর্বের ট্রায়ালের আগেই টিকা আনবে আমেরিকা? প্রশ্ন উঠেছে বিভিন্ন মহলে। দুটি ডোজে এই টিকা দেওয়া হবে। প্রথম ডোজ নেওয়ার পর কয়েক সপ্তাহ অপেক্ষা। তারপর দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া হবে। এই ডোজে এন্টিবডি তৈরি হবে শরীরে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।