সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়কে নিয়ে কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য, সাইবার সেলে অভিযোগ দায়ের পৌলমীর

ফোর্থ পিলার

সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের মৃত্যু নিয়ে সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটে একাধিক বিরূপ মন্তব্য প্রকাশিত হচ্ছে। ৮৫ বছরের একজন মানুষকে কেন বাইরে অভিনয় করতে দেওয়া হল? করোনা পরিস্থিতিতে সেই প্রশ্ন উঠেছে। শুধু তাই নয়, সৌমিত্রবাবুর উপর পরিবার আর্থিকভাবে নির্ভরশীল। সেই প্রশ্ন উঠতে থাকে। ঝড়ের গতিতে এই সমস্ত পোস্ট শেয়ার হয়। বিতর্ক ছড়িয়েছে অনেক গুণ বেশি। শেষপর্যন্ত পৌলমী বসু লালবাজারের সাইবার সেলের শরণাপন্ন হয়েছেন।

সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটে এইসব পোস্ট শেয়ার হয়েছে। তার নিজের চোখেও সেইসব ধরা পড়েছে। মেয়ে পৌলমী এইসব বক্তব্য যারপরনাই বিরক্ত। বাবার মৃত্যুর শোক কাটিয়ে ওঠা সম্ভব নয়। তার মধ্যে এই সমস্ত বক্তব্য আরও বেশি বিরক্তির জায়গা তৈরি করেছে। এই অবস্থানে বুধবার তিনি পুলিশের দ্বারস্থ হয়েছেন। এই বিষয়ে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন তিনি। ফেসবুকেও তিনি একাধিক পোস্ট শেয়ার করে তার ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন।

পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে বিষয়টি নিয়ে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এই কথা জানানো হয়েছে। ফেসবুকের পোস্টগুলিতে প্রচুর রিপোর্ট জমা পড়েছিল। ফেসবুক তাদের তরফে সেই পোস্টগুলি সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইট থেকে উড়িয়ে দেয়। কিন্তু বিতর্ক থামছে না। একটি অংশ সৌমিত্রবাবুর মৃত্যুর অনেক আগে থেকেই সেই কথা প্রচার করেছে ফেসবুকে। এছাড়াও আরও একাধিক মন্তব্য এসেছে কুরুচিকরভাবে।

সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের অনুগামীরা এই সব ঘটনায় রীতিমতো ক্ষুব্ধ, অসন্তুষ্ট। ফেলুদার মৃত্যু নাড়িয়ে দিয়েছে আপামর বাঙালি সমাজকে। মঙ্গলবার শ্রাদ্ধানুষ্ঠান করেছেন মেয়ে পৌলমী। ৪০ দিন হাসপাতালে লড়াই করেছেন সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়। অনেক আগে থেকেই ফেসবুকে একাধিক বিরূপ মন্তব্য ঘুরে বেড়াচ্ছিল। পুলিশ প্রশাসন এই বিষয়গুলিতে যথাযোগ্য ব্যবস্থা নেবে বলে জানানো হয়েছে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।