স্ত্রীকে ধর্ষণ, অভিযুক্তকে মারতে গুলি কিনতে গিয়ে ধৃত দম্পতি

ফোর্থ পিলার

দিনের-পর-দিন স্ত্রীকে ধর্ষণ করছিল এক ব্যক্তি। মুখ খুললে মেরে ফেলার ভয় দেখানো হয়েছিল তাকে। তাই স্বামীকে কোনও কথা বলতে পারেননি। শেষমেষ স্বামী সমস্ত কথা জানতে পারেন। ধর্ষণকারীকে শেষ করে দেওয়ার পরিকল্পনা করেছিল দুজন। সেইমতো একটি বন্দুক তারা কেনে। কিন্তু গুলি পাওয়া যায়নি সে সময়। গুলি কিনতে গিয়ে পুলিশের হাতে ধরা পরল ওই দম্পতি।

বৃহস্পতিবার রাতে নিউটাউন এলাকা থেকে ওই দম্পতিকে ধরা হয়েছে। ইকো পার্ক থানার পুলিশ তাদেরকে পাকড়াও করে থানায় নিয়ে আসে। জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। তখন আসল ঘটনার কথা সামনে আসে। ওই দম্পতির বাড়ি বরাহনগর এলাকায়। ইকো পার্ক থানার পুলিশের কাছে খবর গিয়েছিল এক ব্যক্তি গুলি কেনার জন্য আকাঙ্খার মোড়ে ঘোরাফেরা করছে। পুলিশ সত্যতা প্রথমে যাচাই করে। এরপর আকাঙ্খার মোড়ে গিয়ে ওই ব্যক্তিকে পাকড়াও করে।

তার স্ত্রীকেও ধরা হয়। দু’জনকেই রাতে থানায় নিয়ে এসে শুরু হয় জেরা। কেন তারা গুলি কিনতে চান? এক ব্যক্তিকে গুলি করে মারার পরিকল্পনা করা হয়েছিল। এ কথা শোনার পরে হতবাক হয়ে যান পুলিশকর্মীরা। এরপর আসল কারণ জানা যায়। বরানগর এলাকায় ওই দম্পতির বাড়ির কাছে এক ব্যক্তি থাকে। সে পেশায় ফুচকাবিক্রেতা। ওই ব্যক্তি স্ত্রীকে দিনের পর দিন ধর্ষণ করে যাচ্ছে। একাধিকবার এই ঘটনা ঘটেছে।

ওই মহিলা মুখ খুললে খুন করে ফেলা হবে। এই হুমকি দেওয়া হয়েছে। তাই স্বামীকেও কোনও কথা বলতে পারেননি স্ত্রী। তবে স্বামী পরিবর্তন লক্ষ্য করছিলেন স্ত্রীর। বাড়ি বদলের জন্য চাপ দিতে থাকেন স্বামী। সমস্ত ঘটনা জানতে চান। তখনই এই ঘটনা পরিষ্কার হয়। দুজনেই ওই ফুচকা বিক্রেতাকে মেরে ফেলার পরিকল্পনা করে। সেই মতো একটি বন্দুক তারা কিনেছিল। কিন্তু গুলি ছিল না। সেই গুলি কেনার জন্যই নিউটাউন যাওয়া।

গোটা ঘটনা শুনে হতবাক পুলিশকর্মীরা। বরানগর থানার সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছে। ওই ফুচকা বিক্রেতাকে আটক করে জেরা করা হবে। একথা জানিয়েছে পুলিশ।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।