হাসপাতালে ভর্তি প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প, স্থিতিশীল অবস্থা

ফোর্থ পিলার

প্রথমে ঠিক হয়েছিল হোয়াইট হাউসে তিনি আইসোলেশনে থাকবেন। পরে সিদ্ধান্ত বদল হয়। আমেরিকার সময় শুক্রবার বিকেলের পরে হাসপাতলে ভর্তি হলেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। ওয়াশিংটনের বাইরে ওয়াল্টার রিড মিলিটারি হাসপাতালে তিনি এই মুহূর্তে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তার স্ত্রী মেলানিয়া ট্রাম্প চিকিৎসাধীন। দুজনের শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল বলে জানা যাচ্ছে।

ভারতীয় সময় শুক্রবার সকালে জানা গিয়েছিল করোনা ভাইরাস আক্রান্ত হয়েছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। তিনি নিজেই টুইট করে তাদের আক্রান্ত হওয়ার কথা প্রকাশ করেন। গোটা বিশ্ব জুড়েই কার্যত আলোড়ন ছড়িয়ে পড়েছিল। হোয়াইট হাউসে থেকে চিকিৎসা হবে। একথা প্রাথমিকভাবে জানানো হয়। প্রেসিডেন্টের শরীরে বেশ কিছু মৃদু উপসর্গ রয়েছে। সে কারণেই শেষ পর্যন্ত সিদ্ধান্ত বদল হয়। বিকেলের পর মুখে মাস্ক দেওয়া অবস্থায় প্রেসিডেন্টকে আসতে দেখা গিয়েছে হোয়াইট হাউসের বাইরে হেলিকপ্টার অপেক্ষা করছিল। সেই কপ্টারে উঠে তিনি হাসপাতালে উদ্দেশ্যে রওনা দেন।

সংক্রমণ ও উপসর্গ যাতে আরও বেশি না ছড়ায় সেজন্যই হাসপাতালে ভর্তি করানো হল প্রেসিডেন্টকে। হাসপাতাল থেকে একটি ভিডিও বার্তা দিয়েছেন ট্রাম্প। তিনি হাসপাতালে স্থিতিশীল রয়েছেন। এ কথা জানানো হয়েছে। মেলানিয়া ট্রাম্পও শারীরিকভাবে স্থিতিশীল। এ কথা জানিয়েছেন তিনি। হোয়াইট হাউস সূত্রে খবর, আগামী দিনগুলিতে প্রেসিডেন্ট হাসপাতালে থেকেই নিজের দায়িত্বভার সামলাবেন। প্রয়োজনমতো গুরুত্ব বুঝে কাজ করবেন তিনি।

দ্রুত আরোগ্য কামনা করছেন বহু মানুষ। একাধিক দেশের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সুস্থ হওয়ার জন্য বার্তা দিয়েছেন। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি টুইট করেছিলেন। তিনি লিখেছেন, বন্ধু ট্রাম্প করোনা আক্রান্ত। তার দ্রুত সুস্থতা কামনা করা হচ্ছে। ডোনাল্ড ট্রাম্পের উপদেষ্টা হিক্স করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এই খবর জানার পরেই সক্রিয় হয়ে ওঠে হোয়াইট হাউস। প্রেসিডেন্টের সঙ্গে কর্মসূত্রে বেশিরভাগ সময় কাটান এই উপদেষ্টা। ফলে ডোনাল্ড ট্রাম্পের করোনা ভাইরাস টেস্ট হয়। পাশাপাশি মেলানিয়াও করোনা ভাইরাস টেস্ট করেছিলেন।

ওয়াকিবহাল মহল বলছে, ডোনাল্ড ট্রাম্প শুরু থেকেই কোনও নিষেধাজ্ঞা মানেননি। কখনওই তিনি মাস্ক ব্যবহার করতেন না। সেনা হাসপাতালে যাওয়ার দিন একবারই তাকে মাস্ক ব্যবহার করতে দেখা গিয়েছিল। সামাজিক দূরত্ব কার্যত হোয়াইট হাউসে পালন করা হত না। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প মেলামেশার ক্ষেত্রে খুব একটা গণ্ডি রাখতেন না। তবে হোয়াইট হাউস জানাচ্ছে প্রেসিডেন্টের কাছে যাওয়া প্রত্যেককে আগে টেস্ট করানো হয়। রিপোর্ট আসার পরেই প্রেসিডেন্টের কাছে যাওয়ার অনুমতি থাকে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।