১০ লক্ষ টাকা অবধি ক্রেডিট কার্ড লোন পড়াশোনার জন্য, ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর

ফোর্থ পিলার

ক্ষমতায় এলে রাজ্য সরকার ছাত্রছাত্রীদের পড়াশোনার জন্য আর্থিক সাহায্য করবে। এ কথা জানিয়েছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ভোটের প্রচারে এটি একটি ইস্যু হয়ে যায়। তৃণমূল কংগ্রেসের নির্বাচনী ইস্তাহারে এই ইস্যু প্রকাশিত হয়েছিল। এবার সেই বিষয়টি বাস্তবায়িত হয়েছে। স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ড চালু হতে চলেছে রাজ্যে। পড়ুয়াদের পাশে রয়েছে রাজ্য সরকার।

দশম শ্রেণির পর থেকে উচ্চশিক্ষা ও উচ্চতর শিক্ষার জন্য ছাত্রছাত্রীরা আর্থিক সাহায্য পাবেন। ক্রেডিট কার্ডে ১০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত লোন নেওয়া যাবে। এক্ষেত্রে কোনও গ্যারান্টার দরকার হবে না। রাজ্য সরকার নিজে এই গ্যারান্টারের ভূমিকা পালন করবে। আগামী ৩০ জুন থেকে এই কাজ শুরু হবে। ক্যাবিনেটের বৈঠকে এই মর্মে মতামত জায়গা পেয়েছে। সবুজ সংকেত পাওয়ার পরেই এই বিষয়ে ছাড়পত্র দিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা, উচ্চতর শিক্ষা, বিদেশ যাত্রার ক্ষেত্রে পড়াশোনা– এইসব ক্ষেত্রে ছাড় পাওয়া যাবে এই ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে। রাজ্যে পড়ুয়াদের শিক্ষার অগ্রগতির জন্য একাধিক স্কিম চালু রয়েছে। এবার নতুন একটি কর্মসূচি ঘোষণা হল মুখ্যমন্ত্রীর মাধ্যমে।

স্নাতক, স্নাতকোত্তর, পেশাভিত্তিক কোর্স, ডিপ্লোমা কোর্স, ডক্টরেট,পোস্ট ডক্টরেট ইত্যাদি সমস্ত খরচের জন্য এই টাকা দেওয়া হচ্ছে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এদিন জানান, আলাদা করে কাউকে ব্যাঙ্কের থেকে ঋণ নিতে হবে না। পশ্চিমবঙ্গের যারা বাসিন্দা যারা ১০ বছর এই রাজ্যে বসবাস করেছেন, তাদের পরিবার এই সুবিধা পাবেন। মুখ্যমন্ত্রীর কথায়, “ছাত্রছাত্রীরা আমাদের গর্ব। তাদের শিক্ষা দেওয়ার জন্য নিজের পায়ে দাঁড় করানোর জন্য বাবা-মাকে চিন্তা-ভাবনা করতে হবে না। ঘরবাড়ি বিক্রি করতে হবে না। রাজ্য সরকার আপনাদের পাশে আছে।”চাকরি পাওয়ার পর এই ঋণ মেটাতে হবে পড়ুয়াদের। এ কথা জানানো হয়েছে সরকারি তরফে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।