১০ লক্ষ বর্গ বর্গমাইল অরণ্য জ্বলছে আফ্রিকায়, আগুনের গ্রাসে দ্বিতীয় ফুসফুস

ফোর্থ পিলার ;

শুধু আমাজন জ্বলছে এমন নয়। আফ্রিকার দক্ষিণ অংশজুড়ে একই রকম আগুন গ্রাস করেছে। গভীর অরণ্য জ্বলছে, নাসার উপগ্রহ চিত্র মারফত এই ঘটনা প্রকাশ্যে এসেছে। কঙ্গো অববাহিকার প্রায় ১০ লক্ষ বর্গমাইল এলাকা এই মুহূর্তে আগুনের গ্রাসে।

জি৭ বৈঠকে এই বিষয়ে তেমন কোনও মন্তব্য প্রকাশিত হয়নি। তবে ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল মাঁকড় জানিয়েছেন, কঙ্গোর আগুন পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে হবে। তবে এই এলাকা সম্পূর্ণ অন্য কারণে আগুনে ক্ষতিগ্রস্ত বলে মনে করা হচ্ছে। প্রতিবছর চাষের জন্য কঙ্গো অববাহিকা অঞ্চলে বনভূমিতে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়। আমাজনের পর এই বনভূমিকে পৃথিবীর দ্বিতীয় ফুসফুস বলে আখ্যা দেওয়া হয়েছে।

এবার আগুনের গ্রাসে এই বনভূমির অনেকটাই চলে গিয়েছে বলে খবর। গত ৭২ ঘন্টা ধরে যে বিশাল পরিমাণ আগুন জ্বলছে তা আমাজনের আগুনের থেকেও এই মুহূর্তে ভয়াবহ। আগুন ক্রমে বাড়ছে। মধ্য আফ্রিকায় ভ্রান্ত কৃষি ব্যবস্থা চালু রয়েছে। এইসব অঞ্চলে চাষাবাদের জন্য জঙ্গল কেটে জ্বালিয়ে পরিষ্কার করা হয়। তারপরে শুরু হয় চাষাবাদ। একে ঝুম চাষ বলা হয়।

এছাড়াও মাত্র নয় শতাংশ মানুষ কঙ্গো অববাহিকায় বিদ্যুতের পরিষেবা পেয়ে থাকে। তাই যাবতীয় কাজকর্মের জন্য তাদের কাঠের উপর নির্ভর করতে হয়। সে কারণেও এত বেশি পরিমাণ বনভূমি কাটা হচ্ছে দিনের পির দিন। তবে খনিজ তেল ও প্রাকৃতিক সম্পদ প্রকল্প তৈরীর জন্য যে এই অরণ্যের উপর নজর পড়ছে না। এমন কথা এখনই উড়িয়ে দেওয়া সম্ভব নয়।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।