২৮৬ টি বিয়ে, লক্ষ্য ছিল ৭০০, এখন শ্রীঘরে সাক্ষাৎ সৎপাত্র

ফোর্থ পিলার

ইতিমধ্যেই সে রেকর্ড করেছে। তবে তার নির্দিষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছলে সেই রেকর্ড ভাঙার ক্ষমতা থাকত না বিশ্বের অন্য কারোর। গুণধর সেই ব্যক্তি এই মুহূর্তে শ্রীঘরে। তবে তার কর্মকাণ্ড দেখেশুনে স্তম্ভিত হয়ে গিয়েছেন পুলিশকর্তারাও। মাত্র ৩৫ বছর বয়স। তার মধ্যে এই ব্যক্তি ২৮৬ বার বিয়ে করেছেন। তার লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৭০০।

তবে নিছক বিয়েপাগলা বলে যা বোঝানো হয় এক্ষেত্রে গল্প তেমন নয়৷ টাকাপয়সা, গয়না হাতানো, মহিলাদের সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপনের জন্যই তার এই কারসাজি। ঘটনাটি বাংলাদেশের। সম্প্রতি ঢাকা শহর থেকে তাকে গ্রেফতার করেছে তেজগাঁও থানার পুলিশ। গুণধর ওই ব্যক্তির নাম জাকির। বাংলাদেশ পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, ২১ বছর বয়সে তার প্রথম বিয়ে। এখন তার বয়স ৩৫। অত্যন্ত সুমধুর গলা, মিষ্টি ব্যবহার আর চলনসই খোলতাই চেহারা। এর জেরে মেয়ে ও তার বাড়ির লোকের মন জয় করতে জাকিরের সময় লাগত খুবই কম।

বিয়ে দেওয়ার জন্য কাজী সাহেব থেকে হেকিম সবাই ছিল সাজানো। তাই সবকিছু পরিকল্পনামাফিক এগিয়ে যেত। মেয়েদের বাড়িতে ঘরজামাই থাকবে এমন সুন্দর পাত্র একথা আগে থেকেই ঠিকঠাক। কাজেই তার মাথার ছাদ হওয়ার খুব একটা সমস্যা হত না। কিছু দিন কাটিয়ে পরিমাণমতো হাতিয়ে চম্পট।

কিন্তু কি করতেন জাকির? সে বিষয়ে পুলিশ তদন্তে জানা গিয়েছে হতবাক করা তথ্য। বিয়ের পর টাকা, গয়নাগাঁটি নিয়ে একসময় জাকির পালাত। তার টিঁকি পর্যন্ত পাওয়া যেত না। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ জানানোর ক্ষেত্রে সমস্যাও ছিল। সদ্যবিবাহিতার সঙ্গে শারীরিক সম্পর্কের সময় ভিডিও করে রাখত জাকির। মেয়েটি তাকে ফাঁসিয়ে দেওয়ার জন্য থানায় যাওয়ার কথা বলতেন। সেসময় সেই ক্লিপ বাইরে সকলের কাছে ছড়িয়ে দেওয়া হবে, এমন কথা জানিয়ে দিত জাকির।

ফলে আর কোনও অভিযোগ দায়ের হত না তার নামে। এমন করে ২৮৬ টি বিয়ে পার করেছেন জাকির। এমনটা সে নিজেই জানিয়েছে। তবে এর সত্যতাও বিচার করছে পুলিশ। মূলত টাকা পয়সা হাতানোর মাধ্যমে ২১ থেকে ৩৫ বছর পর্যন্ত পথচলা রাজকীয়ভাবে। এই যুবক বিদেশ ভ্রমণ পর্যন্ত করেছেন একাধিকবার। সম্প্রতি এক মহিলা তার বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ আনেন। সেখানেই একটি মেসেজ রহস্যের জট খুলতে সাহায্য করেছে। জাকির ওই মেয়েটিকে লিখেছিল, তার মতো ২৮৬ জনকে সে পার করেছে। সে কিনা পুলিশে অভিযোগ দায়ের করল!

এই ঘটনায় পুলিশও হতবাক হয়ে যায়। জাল ফেলে জাকিরকে গ্রেফতার করা হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদের মধ্য দিয়ে উঠে এসেছে ভয়ানক সব তথ্য। তার মোবাইল ফোন থেকে একাধিক ভিডিও ক্লিপ পাওয়া গিয়েছে। জানা গিয়েছে বাবা-মা সাজার জন্য অনেক মানুষজন লিস্ট থাকতেন। তাদেরও পাকড়াও করার চেষ্টা চলছে। অনেকেই বলছেন এ যেন বাঙালির সাক্ষাৎ সৎপাত্র।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।