৩৪ বছর বয়সে করোনায় মারা গেলেন শিক্ষিকা

ফোর্থ পিলার

করোনা ভাইরাসে মৃত্যু হল এক স্কুলশিক্ষিকার। চন্দননগরের বাসিন্দা স্কুল শিক্ষিকা সৌমি সাহার বয়স মাত্র ৩৪ বছর। কিছুদিন আগে তার শরীরে উপসর্গ দেখা দেয়। গতকাল তাকে ব্যান্ডেলে ই এস আই কোভিড হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়েছিল। আজ মঙ্গলবার সকালে তিনি মারা গিয়েছেন। দেবদত্তা রায়ের মৃত্যু এখনও টাটকা। সেই রেশ কাটার আগেই আরও একজন কমবয়সী সহনাগরিককে হারালো এই রাজ্য।

শিক্ষিকা সৌমি সাহা চন্দননগরের বাসিন্দা ছিলেন। সম্প্রতি তার করোনা ভাইরাস ধরা পড়ে। জ্বর ও অন্যান্য সংক্রমণ উপসর্গ দেখা গিয়েছিল। তার করোনা ভাইরাস টেস্ট হয়। দেখা যায় তিনি পজেটিভ। চন্দননগর হাসপাতালে তার চিকিৎসা শুরু হয়েছিল। পরে হোম আইসোলেশন থেকে চিকিৎসা চলতে থাকে। সোমবার তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হয়। তাকে ব্যান্ডেলের ই এস আই কোভিড হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়েছিল। আজ সকালে তিনি মারা গিয়েছেন।

মাত্র এক মাস আগে তিনি বিয়ে করেছিলেন সৌমি। অত্যন্ত মেধাবী ছিলেন তিনি। শিক্ষিকা হিসেবেও স্কুলে যথেষ্ট সুনাম ছিল। পরিবারের সকলেই এই মুহূর্তে আইসোলেশনে রয়েছেন। তার মৃত্যু প্রত্যেককে নাড়িয়ে দিয়েছে। এর আগে দেবদত্তা রায় প্রাণ হারিয়েছেন করানো ভাইরাসে।

দমদমে লিচুবাগানের বাড়িতে এখন চরম অনিশ্চয়তা। গতকাল সোমবার সকাল ৯ টায় মারা গিয়েছেন ডেপুটি ম্যাজিস্ট্রেট দেবদত্ত রায়। শেষ দেখা দেখা যায়নি তাকে। স্বামী করোনা ভাইরাস আক্রান্ত। এবার জানা গেল, দেবদত্তার চার বছরের পুত্র ও শাশুড়িও করোনা ভাইরাস আক্রান্ত হয়েছেন। কলকাতার বেসরকারি হাসপাতালগুলোতে ভর্তির জন্য যোগাযোগ করা হচ্ছে। কিন্তু কোথাও বেড ফাঁকা নেই। এই খবর লেখা পর্যন্ত এটাই পরিস্থিতি।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।